Select Page
Maulana{Mewlana} Jalaluddin Rumi biography- Quotes

Maulana{Mewlana} Jalaluddin Rumi biography- Quotes

Mewlana Jalaluddin Rumi: Name and father’s identity: Name Muhammad, Surname Jalaluddin, Maulana Rumi, or Rum was a popular title. On the father’s side, his lineage went to the ninth superior man and met Hazrat Abu Bakr Siddiq (Ra). He was related to the lineage of Hazrat Ali (Ra) on the mother’s side.

Maulana Jalaluddin Rumi’s father was a resident of Balkh in Khurasan. Jalaluddin Rumi was born there. In Maulana Jalaluddin Rumi’s father’s and mother’s family, great ulama(Scholars) and ruler were born. Maulana Jalaluddin Rumi’s grandfather was Maleka-i-Jahan. Khawarijum Shah lineage. Maulana Jalaluddin Rumi’s father’s name was also Muhammad; The title was Bahauddin Walad. He was probably born in 543 AH. Hazrat Bahauddin Walad became proficient in all sciences in the new dawn of his life. The state of his knowledge and dignity was such that complex and difficult fatwas came to him from far and wide in Khurasan. His Majlis was similar to the Shahi Majlis. His title was also Sultanul-Ulama. He used to give general darus from morning till noon. After Zuhr, he used to narrate the truth and knowledge in the meetings of his eminent companions. He used to waz (lecture) on Saturdays and Fridays. He was always seen as scared and worried.

Maulana Jalaluddin Rumi’s birth and primary education:

Maulana Jalaluddin Rumi, son of Bahauddin Walad, was born on 7 Rabiul-Awal 604 AH. Sayyid Burhanuddin Muhakkik Tarmizi was one of the prominent disciples of the Sultan ul-Ulama Bahauddin Walad. The Sultan-ulama appointed him Jalaluddin Rumi’s tutor (651). Jalaluddin Rumi was under his training till the age of 4-5 years. Jalaluddin Rumi passed the stages of spiritual pursuits under the tutelage of this tutor after the demise of his father.

Maulana Jalaluddin Rumi’s Father’s migration from Balkh:

The invitations and exhortations of Hazrat Bahauddin Walad, the father of Maulana Jalaluddin Rumi, became immensely popular and the number of his followers also increased at an unusual rate. As a result, he became the victim of the jealousy of some contemporary scholars. Hazrat Sultan ul-Ulama in his Waz (Lecture) condemned the philosophical ideas about the religion of the Greek philosophers. He used to say, “Some people have thrown the heavenly scriptures into the fire and turned the imperfect and useless quotes of philosophers into a role model for Insist. How can these people hope for salvation ” As a result of such outspoken condemnation, several outward-looking ‘scholars’ began to spread extreme hatred towards him. Khawarijum Shah was very fond of Maulana Walad, so they had the opportunity to complain to him about Maulana’s father.

Suddenly one day the Sultan came to visit Maulana Walad and saw a deadly crowd of visitors there and asked one of his traveling companions ‘Alim(scholars)? See how crowded people are at Maulana Walad court. This Alim(Scholars) said it as a mesmerizing moment of wisdom. If the king does not take action, there is a risk of chaos in the management of the empire and it will be difficult to handle the situation. The king minded to this word. He wants to know, what path will he take in this situation? The aforesaid ‘Alim(scholars) immediately advised him to send the key of treasuries and forts of the service of Maulana Bahauddin Walad and say to him, The gathering and the necessary influence are all in your hands. I have only this key in governance matters. Therefore, these two have been brought to your service.

After hearing this, Maulana said: Go and greet the Sultan. And he will also say, “All the treasures of this perishable world, the hidden treasures, the great country, and its huge army are only Enhances decoration for the king. What is the relationship of the saint with all this? I’m leaving with a happy heart. Let the king reign happily with his family and friends. I will leave at the end of the wa’z(speech) scheduled for Friday. ”

As soon as the news reached the ears of the people of Balkh, a great movement was created in the whole city. Khawarijum Shah became very worried. He sent messengers. Then at night he himself went with the Uzair’s and tried to prevent Maulana Bahauddin Walad from going out. But he did not agree. In the end, he requested him to go out in such a way that no one would notice. Otherwise, a huge disorder may occur. Maulana agreed to this request. Waz on Friday and left Balkh for Baghdad on Saturday. At this time he warned Khawarijum Shah of the arrival of the Tatar army.

The Sultan-ulama left Balkh with great pomp. On the way, he was greeted by the leading elites and scholars of the city where he visited and brought him to their respective cities (albeit for a short time) with utmost respect and reverence. Thus, after visiting various places in Baghdad, Mecca, and Damascus, he finally reached Malatia. He stayed in a place called Akshihar for four years, immersed in reading. Then left Akshihar to Larinda. This is a place that belongs to Konya.

Maulana Jalaluddin Rumi and his Father’s presence in Konya:

At the interest and request of Sultan Alauddin Kaikobad of Rome, he came to Konya in 628 AH. The Sultan himself greeted him. Maulana descended from a horse near The palace and the Sultan received him very politely. Maulana resided in the Konya‘s Madrasa. The Sultan became a follower of Maulana along with most of his companions. Hazrat Bahauddin Walad passed away in 628 AH after a two-year stay in Konya.

It was during this time that Maulana Jalaluddin Rumi was his father’s companion and Sharia and Spiritual continued to acquire knowledge from him. At the age of twenty-two, he arrived in the city of Konya, which became known as his residence and burial ground.

The depth of the relationship between Sultan Alauddin Kaikobad and Jalal Uddin Rumi:

Amir Badruddin Gahartash, the Sultan’s tutor, built a madrasa called ‘Madrasa-i-Khudawandigar’ in Konya, cause of realizing Rumi’s deep erudition and talent.

Sultan Alauddin Kaikobad had great respect for Maulana Jalaluddin Rumi and had a respectful relationship with him. When he built a fortress in Konya, he asked Jalaluddin Rumi to visit for at least one day.

Maulana Jalaluddin Rumi inspected the fortress and remarked: This is undoubtedly a good way to prevent floods and enemies But have you ever thought about the remedy for the arrow-like cry of the oppressed and downtrodden, which is not in thousands, but is emanating from millions of towers every day and burdening the world? ‘Build the fortress of justice and fairness. The peace and security of the world lie in it.

Sultan was greatly impressed by Maulana Jalaluddin Rumi’s advice.

After the death of Maulana Bahauddin Walad, Maulana Jalaluddin Rumi succeeded his father by the consensus of the then Sultan, Scholars, and other leading personalities. He continued the dos-tadris or reading, talking (sermon), and Irshad. His tutor Sayyid Burhanuddin Muhaqqiq Tirmizi had been gone Tirmiyah. After the death of Maulana Bahauddin Walad, he also came to Kony Maulana Rumi became his disciple and in the absence of his father, he passed through the stages of spiritual pursuits. He spent nine years in his company. Sayyid Burhanuddin died in 636 AH.

Maulana Jalaluddin Rumi’s educational tour and busy schedule:

In 630 AH, Maulana Jalaluddin Rumi visited Syria for further education and spiritual attainment and landed at Halab (Aleppo). Sultan Saladin’s son Al-Malikuz-Zahir established many large madrasas in 591 AH as a result of the movement of one of the best scholars of that era Kashi Bahauddin Ibn Shaddad. As a result, Halab became a center of learning like Damascus.

Arriving at Halab, Maulana Jalaluddin Rumi took up residence at Madrasa-i-Halabia and benefited from Kamaluddin Ibn-Adim. Although Maulana Jalaluddin Rumi was engaged in gathering knowledge here, in the language of Soldier he would solve all the complex problems and he would present all the arguments which were not recorded in any book. Maulana Jalaluddin Rumi left Halab for Damascus. There he resided in the Madrasa-Imukaddasia. At that time in Damascus, there was a crowd of scholars. A soldier writes that Maulana Jalaluddin Rumi used to spend his time in Damascus in the company of Shaykh Muhyiddin Ibn ‘Arabi, Shaykh Saduddin Hamubi, Shaykh Uthman Rumi, Shaykh Awanuddin Kirmani, and Shaykh Sadruddin Kawnbi.

Here they used to talk to each other about reality and spirituality knowledge. In 634 or 635 AH, Maulana Jalaluddin Rumi returned from Damascus and settled in Konya. For five years after the death of Sayyid Burhanuddin (638 AH), he was engaged in the practice of teaching and learning all the time, apparently in the guise of an ‘Alim-Ulama(Scholars). Shaykh Muhyiddin Ibn Arabi died in 638 AH. Most of the bright stars of the world of knowledge that had gathered around him had come and gathered in Konya. Shaykh Sadruddin is one of them.

From the eastern side, most of the scholars and ulema who were disturbed by the devastation and Troubled, most of them are used to take Konya as their abode. Thus Konya became Madinatul-Ulama (the city of the wise) in that era. Among these scholars, Maulana Jalaluddin Rumi’s place was above all. At that time Maulana used to do all the things that are usually done by Alim-Ulama i.e. reading, preaching, giving fatwa, etc. Maulana Jalaluddin Rumi was engaged in teaching most of the time. He had more than four hundred students in his own madrasa.

Apart from reading, the second thing that Maulana Jalaluddin Rumi used to do is give speeches. Fatwa giving was part of his permanent work. One dinar was prescribed for Maulana from Baitul-Mal. He considered it as a fee for issuing that fatwa. He was so strict in this matter that even when he was in a state of extreme poverty and was deeply immersed in the assembly of knowledge, he was instructed to inform him immediately of any fatwa that would come at that moment. Paper and pen were always with him.

The revolutionary change of conditions:

He had the same condition till 642 AH. Then came the events that led to a revolutionary change in his life and he was transformed from Maulvi Jalaluddin Kaunbi to Maulana-i-Rumi. Maulana’s condition was due to his association with Shams-i-Tabrizi and his attachment and extinction with his being. He himself says:

مولوی هرگزنه شد مولائے روم + تاغلام شمس تبریزی نه شد

(Rumi) Maulvi could not be Maulana Roomi until he confessed to Shams Tabrizi’s slavery.

Shams Tabrizi:

What is the identity of the country and clan of Shams Tabrizi (Muhammad Ibn Ali Ibn Malikdad)?

His opponents slandered him. One of the slanders is that his (Shams Tabrizi ) lineage is unknown.

نے در و اصل ونے نسب پیداست می نه دانیم هم که اوز کجاست

The fact is that from infancy he was endowed with superiority, love, and affection. It is narrated in his own mouth in the book Manaki Bul-Arifin that, from the time he did not reach boy, he was so intoxicated with the love of the Prophet (SA) that he did not want to eat for thirty or forty days.

After completing his formal education, he became a disciple of Shaykh Abu Bakr Sillabaf. According to some narrations, he was a follower of Shaykh ‘Yuzuddin Sanjasi. Some descriptions mention other names. Perhaps he was blessed with the blessings of all of them.

When he was not satisfied with all this, he started wandering around in search of God. He used to travel in such a simple dress that no one could know anything about his own goodness and perfection. He wore a woolen blanket in black and wherever he went he stayed in the common inn and hung expensive locks on the doors so that people considered him a rich businessman. There was nothing inside the house except a mattress bed.

Due to the excess of the tour, people started calling him ‘Shamus Bird’. He visited Tabari, Baghdad, Jordan, Rome, Caesarea, and Damascus. He used to sell pajamas with ribbon weaving and this was his means of earning a living. The state of his diet was such that during his one-year stay in Damascus, he used to drink one cup of drink made by slaughtered animal’s head made a week without any oil. He did not find anyone who could carry the burden of his companionship. Most of the time he prayed: O Lord! Give me a partner who can carry the burden of my companionship.

Maulana Jalaluddin Rumi’s meeting with Shams Tabrizi and great change:

Shaykh of Shams Tabrizi instructed him to go to the room and said: There he will meet a burnt heart; You will enlighten him. He reached Konya on the 26th day of Jumada al-Ukhra in 642 AH. And there are sugar sellers in the neighborhood. One day he saw that Maulana Jalaluddin Rumi was riding on the back of an animal and the people around him were benefiting from his knowledge. Shams Tabrizi went ahead and asked? What is the purpose of concession and knowledge?

Maulana Jalal Uddin Rumi said: To know about manners and law. Shams Tabrizi said: No, go ahead until you reach the real goal. He then recited the following poem by Hakim Sana:

علم كزنو ترانه بستاند + جهل ازاں علم به بود بسیار

The fool is better than that knowledge that cannot snatch away your egoism from you.

Maulana Jalal Uddin Rumi was surprised. Shams’s arrow, on the other hand, is capable of hitting targets. Maulana Jalal Uddin Rumi brought him to his house and stayed with him in a room for forty days. Anyone did not have access to the room at that time. Sipahsalar said: Jalaluddin Rumi and Sams Tabriz stayed about six months in the Salauddin Yakub room. Except for Sheikh Salahuddin, no one else had access to the room.

The meeting of Shams Tabrizi gave a new life, new consciousness, and a new world to Maulana Jalal Uddin Rumi. Maulana Jalal Uddin Rumi himself said:

شمس تبریزی بما راه حقیقت بنمود +ماز فيض قدم اوست که ایمان داریم

Shams Tabriz has shown us the way to reality. It is the benefit of his footsteps that we too are entitled to faith today.

Until now, Maulana was the master of that era and sat on the seat of the best Scholars. Students-teachers, sages-saints, Sufi-saints were all his benefactors, eager to benefit from him. But today he himself is a beggar of grace and Shams Tabriz is the owner of giving him Irshad and Fayez. Maulana’s son Sultan Walad said:

شیخ استاذ گشت نو آموز + درس خواندی بخدمتش هر روز گرچه در علم فقر کامل بود + علم نو بود کو بو به نمود

‘The Shaykh and teacher of the scholars re-arranged the students; He used to take daily lessons in the service of Shams-i-Tabrizi. Despite being a scholar in the knowledge of the saint, he was introduced to new knowledge.

Maulana (RH) said about this in his own mouth:

زاهد بودم ترئه گویم کردی * سرفتنه بزم و باده جویم کردی سجاده نشين بار قاره بودم + بازیچه کو دکاں گویم کردی

I was a saint, (he) made me a singer, made me chief of drunkards and a drunkard. I was a dignified Gaddinshin Pir (scholar); He turned me into a toy for children playing in the alleys.

As a result, after meeting Shams-i-Tabrizi, Maulana gave up teaching and preaching. He says:

عطار دوار دفتر پاره بودم + زدشت او زمانی می نشستم چو دیدم نوح پیشانی ساقی + شدم مست و قلم هارا شکستم

I was the topic of discussion at every meeting like Mercury. This time I have been sitting on his ground for a long time. When I saw the forehead-serving drinker (Saki) like Noah (SA), I went mad and broke the pens.

Creation of a wide commotion:

When Maulana thus severed all other relations and began to follow and imitate Shams Tabrizi in every word, the matter became very painful for Maulana’s disciples. Then there was a commotion all around.

The public was not well aware of Shams’s condition. The idea of ​​the disciples was, “We spent years and years in the service of Maulana, we saw the miracles of Maulana, his fame spread all around. But today a nameless person has come from where and snatched him from us in such a way that we have been deprived of the opportunity to see his face. His studies, teaching, preaching all stopped. This person will undoubtedly be a magician or a deceiver. Otherwise, what can he do, this mountainous personality can be swept away like straw. ”

After all, everyone became the enemy of Shams Tabrizi. They could not say anything in front of Maulana Jalaluddin Rumi, but as soon as he went back and forth, they called Shams good or bad and They would try day and night, how and when Hazrat Shams Tabrizi could be expelled from there so that they were can be blessed with Maulana’s companionship as before.

The disappearance of Shams:

Hazrat Shamsuddin remained silent in the mischief of these people. He realized that these people were so depressed because of their devotion to the Maulana. But when their behavior exceeded the limits and he realized that this time there was a danger of the creation of Chaotic, he one day quietly left Kunya. Aflaki mentions the date of his first disappearance as Thursday, 1st Shawwal of 643 AH. The first time he did, he stayed in Kunia for over a year.

The separation of Shams was very difficult and painful for Maulana Jalal Uddin Rumi. The opposite happened to what the disciples thought. After the departure of Shams, what will Maulana Jalal Uddin Rumi pay attention to them? Now he is about to give up what he used to give. Due to some ignorance, honest and trustworthy people also had to be deprived of Maulana’s company.

The instability of Maulana Jalal Uddin Rumi and the return of Shams Tabrizi:

According to the Sipahsalar, this dissolution and separation lasted until the letter came from Shamsuddin in the name of Maulana. After receiving the letter, Maulana’s condition changed a bit and his interest and love for Shams attracted him to Sama song. He continued to keep a good eye on all those who did not misbehave against Shams. At that time Maulana Jalal Uddin Rumi wrote four lines of poetry in the service of Hazrat Shams. In it, he expressed his instability and immense interest in him. He said:

ایها النور في الفواد تعال + غابة الوجد والمراد تعال ايها السابق الذي سبقت + منك مصدوقة الوداد تعال چوں بیانی زهی کشاد و مراد + چوں نیانی زهے کسا نعال

انت كالشمس اذ دشت ونات + با قريبا على البعد تعال

Oh light! Come to my heart; O the last destination of my love and goal! come. Come on, hey pioneer! True love has already been revealed from you; So it’s not too late, come on. When you come it will be a great victory and success. If you do not come, it will be a great loss; So you come. You are as bright as the sun. I want to stay close and stay away. Hey, come from the farthest to the nearest.

In the meantime, Chaotic has become a bit stagnant. After gaining leisure and pleasure, people abandoned the opposition to Shams. Maulana found a way to bring Shams back. The son called Sultan Walad and said: Run to Shah-i-Maqbool on my behalf and take it and offer it at his feet. It should be forgiven. This time, please let him step here. The letter he wrote with his hand was as follows:

Maulana{Mewlana} Jalaluddin Rumi biography- Quotes

মাওলানা জালাল উদ্দিন রুমি (রহঃ) জীবনী-বানী-কবিতা { মসনবী শরীফ থেকে }

মসনবী শরীফ থেকে কিছু বানী এবং জালাল উদ্দিন রুমি (রহঃ) এর জীবনী।

নাম ও পিতৃ পরিচয়: নাম মুহাম্মদ, উপাধি জালালুদ্দীন, মওলানা রূম বা রূমী ছিল জনপ্রিয় উপাধি। পিতার দিক দিয়ে তার বংশ নবম ঊর্ধ্বতন পুরুষে গিয়ে হযরত আবুবকর সিদ্দীক (রাঃ)এর সঙ্গে মিলিত হয়েছে। তিনি মায়ের দিক দিয়ে হযরত আলী (রা)-র বংশের সাথে সম্পর্কিত ছিলেন।

মওলানা রূমী (রহঃ)-র পিতা খুরাসানের অন্তর্গত বলখের অধিবাসী ছিলেন। সেখানেই মওলানার জন্ম হয়। মওলানার পিতৃ ও মাতৃকুলে বড় বড় উলামায়ে কিরাম ও শাসকের জন্ম হয়। মওলানার পিতামহ মালেকা-ই-জাহান ছিলেন খাওয়ারিম শাহী বংশােদ্ভূতা। মওলানার পিতার নামও ছিল মুহাম্মদ; উপাধি ছিল বাহাউদ্দীন ওয়ালাদ। তাঁর জন্ম সম্ভবত ৫৪৩ হিজরীতে। হযরত বাহাউদ্দীন ওয়ালাদ জীবনের নব প্রভাতেই সকল জ্ঞান-বিজ্ঞানে পারদর্শিতা অর্জন করেন। তার জ্ঞান ও মর্যাদার অবস্থা ছিল এই যে, খুরাসানের দূর-দূরান্তর এলাকা থেকে জটিল ও কঠিন ফতওয়াদি তাঁরই নিকট আসত। তার মজলিস ছিল শাহী মজলিসেরই অনুরূপ। তার উপাধিও ছিল সুলতানুল-উলামা। তিনি সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত সাধারণ দরূস প্রদান করতেন। জুহরের পর তিনি তার বিশিষ্ট সাথীদের মজলিসে হাকীকত ও মারিফত বর্ণনা করতেন। তিনি সােমবার ও জুমু’আর দিন সাধারণভাবে ওয়াজ করতেন। তাকে সব সময় ভীতিগ্রস্ত ও চিন্তাযুক্ত দেখা যেত।

মওলানার জন্ম ও প্রাথমিক শিক্ষাঃ

বাহাউদ্দীন ওয়ালাদের পুত্র মওলানা জালালুদ্দীন রুমী ৬০৪ হিজরীর ৬ই রবিউল-আওয়াল তারিখে জন্মগ্রহণ করেন। সুলতানুল-উলামা বাহাউদ্দীন ওয়ালাদের বিশিষ্ট মুরীদদের ভেতর একজন উন্নত স্তরের বুযুর্গ ছিলেন সায়্যিদ বুরহানুদ্দীন মুহাক্কিক তীরমিযী। সুলতানুল-উলামা তাঁকেই মওলানার গৃহশিক্ষক (651) নিযুক্ত করেন। ৪-৫ বছর বয়স পর্যন্ত মওলানা তারই প্রশিক্ষণাধীনে ছিলেন। মওলানা তার বুযুর্গ পিতার ইনতিকালের পর এই গৃহশিক্ষকের অভিভাবকত্বে আধ্যাত্মিক সাধনার স্তরগুলাে অতিক্রম করেন।

বলখ থেকে জালাল উদ্দিন রুমির পিতার হিজরতঃ

মওলানার পিতা হযরত বাহাউদ্দীন ওয়ালাদের দাওয়াত ও নসীহত সীমাতিরিক্ত জনপ্রিয়তা লাভ করে এবং তার মুরীদদের সংখ্যাও অস্বাভাবিক হারে বৃদ্বি পায়। ফলে তিনি সমসাময়িক কতক আলিম-উলামা’র ঈর্ষার শিকারে পরিণত হন। হযরত সুলতানুল-উলামা তাঁর ওয়াজে গ্রীক দার্শনিকদের ধর্ম বিষয়ক ধ্যান-ধারণার নিন্দা করতেন। তিনি বলতেন, “কিছু লােক আসমানী গ্রন্থ চিতাতে নিক্ষেপ করেছে এবং দার্শনিকদের অপূর্ণ ও কার্যানুপযােগী বাণীকে জেদের অনুকরণীয় আদর্শে পরিণত করেছে। এসব লােক কি করে নাজাতের আশা করতে পারে?” এরূপ খােলাখুলি নিন্দা জ্ঞাপনের ফলে বাহ্যিক দৃষ্টি সম্পর্ন কিছু সংখ্যক ‘আলিম তার সম্পর্কে চরম আকারের বিদ্বেষ পােষণ করতে থাকে। খাওয়ারিম শাহ মওলানা ওয়ালাদের খুবই ভক্ত ও অনুরক্ত ছিলেন বিধায় এরা তার নিকট মওলানার পিতা সম্পর্কে অভিযােগ উত্থাপনের সুযােগ পেত।

আকস্মিকভাবে একদিন সুলতান মওলানা ওয়ালাদের যিয়ারতে আসেন এবং সেখানে আগন্তকদের সাংঘাতিক ভীড় দেখতে পেয়ে তার সফরসঙ্গী একজন ‘আলিমকে বলেন ? দেখুন, মওলানার দরবারে লােকের কত ভীড়। ঐ আলিম এটাকে একটা মােক্ষম মুহুর্ত জ্ঞান করে বলে ওঠেন। বাদশাহ যদি এর একটা ব্যবস্থা না নেন তাহলে সাম্রাজ্যের ব্যবস্থাপনায় বিশৃঙ্খলা দেখা দেবার আশঙ্কা রয়েছে এবং ঐ অবস্থায় পরিস্থিতি সামাল দেওয়া কঠিন হয়ে পড়বে। কথাটা বাদশাহর মনে ধরে। তিনি জিজ্ঞেস করে জানতে চান, এমতাবস্থায় তিনি কোন্ পথ অবলম্বন করবেন? উল্লিখিত ‘আলিম সংগে সংগে পরামর্শ দেন রাজকোষ ও দুর্গের চাবিগুলাে মওলানা বাহাউদ্দীন ওয়ালাদ-এর খিদমতে পাঠিয়ে বলুন, “লােক সমাগম ও প্রয়ােজনীয় প্রভাব-প্রতিপত্তি সব কিছুই তাে আপনার হাতে চলে গেছে। শাসন সংক্রান্ত বিষয়াবলীর মধ্যে আমার নিকট শুধু এই চাবিগুচ্ছই রয়েছে। অতএব, এগুলােও আপনার খিদমতে হাযির করা হল।

এ কথা শােনার পর মওলানা বলেন : সুলতানকে গিয়ে আমার সালাম বলবে। এবং এও বলবে, “ধ্বংসশীল এ পৃথিবীর সমস্ত ধনভাণ্ডার, গুপ্তধন, বিরাট দেশ ও তার বিশাল সেনাবাহিনী বাদশাহর পক্ষেই কেবল শােভা পায়। এ সবের সঙ্গে দরবেশের কি সম্পর্ক? আমি হৃষ্ট চিত্তে এখান থেকে চলে যাচ্ছি। বাদশাহ তাঁর লােকজন ও বন্ধু-বান্ধব নিয়ে সুখের সঙ্গে রাজত্ব করুন। জুমু’আর দিন নির্ধারিত ওয়া’জ শেষে আমি চলে যাব।”

বলখের অধিবাসীদের কানে এ খবর গিয়ে পৌছুতেই সারা শহরে বিরাট আন্দোলনের সৃষ্টি হয়। এতে খাওয়ারিম শাহ ভীষণ চিন্তিত হয়ে পড়েন। তিনি দূত পাঠান। অতঃপর রাত্রিবেলা নিজেই উজীর সমভিব্যাহারে গিয়ে মওলানা বাহাউদ্দীন ওয়ালাদকে তাঁর বহির্গমন থেকে বিরত রাখতে চেষ্টা করেন। কিন্তু তিনি তাতে রাজি হননি। শেষাবধি তিনি তাঁকে অনুরােধ জানান, তিনি (মওলানা ওয়ালাদ) যেন এমনভাবে বেরিয়ে যান যাতে কেউ টের না পায়। অন্যথায় বিরাট গােলযােগ দেখা দিতে পারে। মওলানা এ অনুরােধে সম্মত হন। জুমু’আর দিন ওয়াজ করেন এবং শনিবার দিন বলখ থেকে বাগদাদের উদ্দেশে বেরিয়ে পড়েন। এ ওয়াজে তিনি খাওয়ারিযুম শাহকে তাতার সেনাবাহিনীর আগমন সম্পর্কে সতর্ক করে দিয়েছিলেন।

সুলতানুল-উলামা বল্খ থেকে অত্যন্ত শান-শওকতের সাথে রওয়ানা হন। পথিমধ্যে তিনি যে শহরে গিয়েই উপস্থিত হন সেখানকার নেতৃস্থানীয় অভিজাত ব্যক্তিবর্গ ও ‘আলিম-উলামা শহরের বাইরে গিয়ে তাকে অভ্যর্থনা জানান এবং অত্যন্ত সম্মান ও শ্রদ্ধা সহকারে তাকে নিজ নিজ শহরে (ক্ষণকালের জন্য হলেও) নিয়ে আসেন। এভাবে বাগদাদ, মক্কা মু’আজ্জমা, দামেস্কের বিভিন্ন স্থান ঘুরে অবশেষে তিনি মালাতিয়া গিয়ে পেীছেন। আকশিহর নামক স্থানে তিনি চার বছর অবস্থান করেন, পঠন-পাঠনে মগ্ন হয়ে পড়েন। অতঃপর আকশিহর থেকে লারিন্দা গমন করেন। এটি কাউনিয়ার অন্তর্গত একটি স্থান।

মওলানা জালাল উদ্দিন রুমি এবং তার পিতার কাউনিয়ায় উপস্থিতিঃ

রূমের সুলতান আলাউদ্দীন কায়কোবাদের আগ্রহ ও অনুরােধে তিনি ৬২৬ হিজরীতে কাউনিয়ায় আগমন করেন। সুলতান নিজেই তাকে অভ্যর্থনা জানান। মওলানা শাহী মহলের নিকট ঘােড়া থেকে অবতরণ করেন এবং সুলতান অত্যন্ত বিনয় সহকারে তাকে গ্রহণ করেন। মওলানা কাউনিয়া মাদরাসায় অবস্থান করেন। সুলতান তার অধিকাংশ সঙ্গী সহ মওলানার মুরীদ হন। হযরত বাহাউদ্দীন ওয়ালাদ দু’বছর কাউনিয়া অবস্থানের পর ৬২৮ হিজরীতে ইনতিকাল করেন।

এই গােটা সময়টাতেই মওলানা রূমী তাঁর পিতার সঙ্গী ছিলেন এবং জাহিরী ও বাতিনী ইলম তারই নিকট থেকে হাসিল করতে থাকেন। বাইশ বছর বয়সে তনি কাউনিয়া শহরে আগমন করেন এবং এ শহরই তার আবাসস্থল ও সমাধিস্থল ইসাবে পরিচিতি লাভ করে।

সুলতান আলাউদ্দিন কায়কোবাদ এবং জালাল উদ্দিন রুমির সম্পর্কের গভীরতাঃ

সুলতানের গৃহ-শিক্ষক আমীর বদরুদ্দীন গহরতাশ জালালুদ্দিন রুমীর গভীর পাণ্ডিত্য ও খােদাদাদ প্রতিভা লক্ষ্য করে তার জন্য কাউনিয়ায় মাদ্রাসা-ই-খােদাওয়ান্দিগার’ নামক একটি মাদ্রাসা নির্মাণ করেন।

সুলতান আলাউদ্দীন কায়কোবাদ জালালুদ্দিন রুমীকে খুবই সম্মান করতেন এবং তার সঙ্গে শ্রদ্ধাপূর্ণ সম্পর্ক রাখতেন। তিনি কাউনিয়ায় দুর্গ নির্মাণ করলে জালালুদ্দিন রুমীকে সেখানে একদিনের জন্য হলেও বেড়িয়ে যাবার আবেদন জানান।

মওলানা জালালুদ্দিন রুমী দুর্গ পরিদর্শন করে মন্তব্য করেন : “প্লাবন রােধ ও শত্রু প্রতিরােধে এ নিঃসন্দেহে একটি উত্তম ব্যবস্থা। কিন্তু মজলুম ও নিপীড়িত মানুষের তীররূপী কাতর ফরিয়াদ, যা হাজারাে নয়, লাখাে বুরূজ থেকে প্রতিদিন নির্গত হচ্ছে এবং বিশ্বকে ভারাক্রান্ত করে তুলছে, তার প্রতিকার সম্পর্কে কি আপনি কোন চিন্তা করেছেন? ‘আদল ও ইনসাফের দুর্গ নির্মাণ করুন। এর ভেতরই বিশ্বের শান্তি ও নিরাপত্তা নিহিত।”

সুলতান মওলানা জালালুদ্দিন রুমীর এ উপদেশে অত্যন্ত প্রভাবিত হন।

মওলানা বাহাউদ্দীন ওয়ালাদের ইনতিকালের পর তৎকালীন সুলতান, উলামায়ে কিরাম ও নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিবর্গের ঐকমত্যে মওলানা জালালুদ্দিন রুমী স্বীয় পিতার স্থলাভিষিক্ত হন। তিনি দস-তাদরীস তথা পঠন-পাঠন, তালকীন (ধর্মোপদেশ) ও ইরশাদের ধারা অব্যাহত রাখেন। তার গৃহশিক্ষক সায়্যিদ বুরহানুদ্দীন মুহাক্কিক তিরমিযী তিরমিয়া চলে গিয়েছিলেন। মওলানা বাহাউদ্দীন ওয়ালাদের ইনতিকালের পর তিনিও কাউনিয়া আগমন করেন। মওলানা রূমী তাঁর মুরীদ হন এবং স্বীয় পিতার অবর্তমানে তারই মাধ্যমে আধ্যাত্মিক সাধনার স্তরগুলাে অতিক্রম করেন। নয় বছর তিনি তাঁর সাহচর্যে কাটান। ৬৩৭ হিজরীতে সায়্যিদ বুরহানুদ্দীন ইনতিকাল করেন।

মওলানা জালালুদ্দিন রুমীর শিক্ষা সফর ও কর্মব্যস্ততাঃ

৬৩০ হিজরীতে মওলানা অধিকতর শিক্ষা লাভ ও আধ্যাত্মিক ফয়েয হাসিলের জন্য সিরিয়া (শাম) সফর করেন এবং হলব (আলেপ্পো)-এ অবতরণ করেন। সুলতান সালাহুদ্দীন তনয় আল-মালিকুজ-জাহির সে যুগের অন্যতম শ্রেষ্ঠ আলিম কাশী বাহাউদ্দীন ইবনে শাদ্দাদের আন্দোলনের ফলে ৫৯১ হিজরীতে অনেকগুলাে বড় মাদ্রাসা তৈরী করেছিলেন। এর ফলে হলবও দামেস্কের মত জ্ঞান চর্চার কেন্দ্রে পরিণত হয়েছিল।

হলব-এ এসে মওলানা জালালুদ্দিন রুমী মাদ্রাসা-ই-হালাবিয়ায় অবস্থান নেন এবং কামালুদ্দীন ইবনুল-আদীম থেকে উপকৃত হন। মওলানা জালালুদ্দিন রুমী যদিও এখানে বিদ্যার্জনে ব্যাপৃত ছিলেন, তবু সিপাহসালারের ভাষায় যে সব জটিল সমস্যার সমাধান কেউ করতে পারত না, তার সমাধান তিনিই করে দিতেন এবং সে সবের এমন সব যুক্তি পেশ করতেন যা কোন কিতাবে লিপিবদ্ধ ছিল না। হলব থেকে মওলানা জালালুদ্দিন রুমী দামেস্কে গমন করেন। সেখানে তিনি মাদ্রাসা-ইমুকাদ্দাসিয়ায় অবস্থান করেন। দামেস্কে সে সময় ‘আলিম-উলামার ভীড় লেগেই থাকত। সিপাহসালার লিখেছেন যে, দামেস্কে শায়খ মুহয়িউদ্দীন ইবনে ‘আরাবী, শায়খ সাদুদ্দীন হামুবী, শায়খ উছমান রুমী, শায়খ আওহানুদ্দীন কিরমানী ও শায়খ সদরুদ্দীন কাওনবীর সাহচর্যে মওলানা জালালুদ্দিন রুমী তার সময় অতিবাহিত করতেন।

এখানে হাকীকত ও মা’রিফত বিষয়ে তাদের পরস্পরের মধ্যে আলাপ-আলােচনা হত। ৬৩৪ কিংবা ৬৩৫ হিজরীতে মওলানা জালালুদ্দিন রুমী দামেস্ক থেকে ফিরে এসে কাউনিয়ায় স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন। সায়্যিদ বুরহানুদ্দীনের ইনতিকালের (৬৩৭ হি.)পর পাঁচ বছর পর্যন্ত তিনি বাহ্যত ‘আলিম-উলামার বেশ ধারণ করে সার্বক্ষণিকভাবে জ্ঞান চর্চা ও শিক্ষা দান কর্মে ব্যাপৃত থাকেন। ৬৩৮ হিঃ তে শায়খ মুহয়িউদ্দীন ইবনে আরাবী ইনতিকাল করেন। তার চারপাশে জ্ঞান জগতের যে সব উজ্জ্বল নক্ষত্রের সমাবেশ ঘটেছিল তাঁদের অধিকাংশই কাউনিয়ায় এসে সমবেত হয়েছিল। এঁদের মধ্যে শায়খ সদরুদ্দীনও অন্যতম।

প্রাচ্য ভূখণ্ডের দিক থেকে যে সৰ আলিম-উলামা ও বুযুর্গ সেখানকার ধ্বংসযজ্ঞের কারণে পেরেশান হয়ে রূমের দিকে রওয়ানা হতেন তাদের বেশির ভাগই পথিমধ্যে কাউনিয়াকেই তাদের আবাস ও আশ্রয়স্থল হিসাবে গ্রহণ করতেন। এভাবে কাউনিয়া সে যুগে মদীনাতুল-উলামা’য় (জ্ঞানীদের শহর) পরিণত হয়। এসব আলিম-উলামার মধ্যে মওলানা জালালুদ্দিন রুমীর স্থান ছিল সবার ঊর্ধ্বে। সে যুগে মওলানা ঐ সব কাজই করতেন যা সাধারণত আলিম-উলামা করে থাকেন অর্থাৎ পঠন-পাঠন, ওয়াজ-নসীহত, ফতওয়া প্রদান ইত্যাদি। মওলানা জালালুদ্দিন রুমী বেশির ভাগ সময় শিক্ষা দান কার্যে ব্যাপৃত থাকতেন। তাঁর নিজের মাদরাসায়ই চার শ’র বেশি ছাত্র ছিল।

পঠন-পাঠন ছাড়াও মওলানা জালালুদ্দিন রুমীর দ্বিতীয় যে কাজটি করতেন তা হ’ল ওয়াজ বা বক্তৃতা দান। ফতওয়া দান ছিল তার স্থায়ী কর্মের অন্তর্গত। বায়তু’ল-মাল থেকে মওলানার জন্য এক দীনার নির্ধারিত ছিল। একে তিনি সেই ফতওয়া প্রদানের পারিশ্রমিক হিসাবেই গণ্য করতেন। এ ব্যাপারে তিনি এতটা কঠোর ছিলেন যে, যখন তিনি চরম অভাব-অনটনে পতিত হতেন এবং ইলমের মজলিসে গভীরভাবে ডুবে থাকতেন তখনও তাঁর নির্দেশ ছিল, যে মুহূর্তেই কোন ফতওয়া আসবে তাৎক্ষণিকভাবে যেন তাঁকে খবর দেয়া হয়। দোয়াত-কলম সব সময় তাঁর সাথেই থাকত।

অবস্থার বিপ্লবাত্মক পরিবর্তনঃ

৬৪২ হিজরী অবধি তার ঐ একই অবস্থা ছিল। অতঃপর এমন সব ঘটনার সূত্রপাত হয় যার ফলে তাঁর জীবনে এক বিপ্লবাত্মক পরিবর্তন আসে এবং তিনি মওলবী জালালুদ্দীন কাওনবী থেকে ‘মওলানা-ই-রূমী’তে রূপান্তরিত হন। শাম্স-ই-তাব্রিজী-এর সাথে মােলাকাত এবং তাঁর সত্তার সঙ্গে আসক্তি ও বিলুপ্তির ফলে মওলানার এই অবস্তা ঘটেছিল। তিনি স্বয়ং বলেছেন :

مولوی هرگزنه شد مولائے روم + تاغلام شمس تبریزی نه شد

(রুমী) মওলভী ততক্ষণ পর্যন্ত মওলানা রূম হতে পারেনি যতক্ষণ পর্যন্ত না সে শাম্স তাবরীযীর গােলামী কবুল করেছে।

শামস তাবরীযঃ

শামস তাবরীয (মুহাম্মাদ ইব্‌ন আলী ইব্‌ন মালিকদাদ)-এর দেশ ও বংশ পরিচয় কি? তাঁর বিরুদ্ধবাদীরা অনেক অপবাদই তাঁর প্রতি আরােপ করেছিল। তন্মধ্যে একটি অপবাদ হ’ল তার (শাম্স তাবরীযের) বংশ-পরিচয় অজ্ঞাত।

نے در و اصل ونے نسب پیداست می نه دانیم هم که اوز کجاست

প্রকৃত ব্যাপার এই যে, শৈশব থেকেই তিনি উন্নততর যােগ্যতা, প্রেমের আবেগ ও মুহব্বতের অধিকারী ছিলেন। মানাকি ‘বু’ল-আরিফীন’ নামক গ্রন্থে স্বয়ং তাঁর মুখেই বর্ণিত আছে যে, তিনি যখন সাবালকে উপনীত হননি, তখন থেকেই তিনি মহানবী (সা)-এর ‘ইশক-এ এমন মত্ত হয়ে থাকতেন যে, তিরিশ চল্লিশ দিন পর্যন্ত তাঁর আহার গ্রহণের ইচ্ছেটুকুও হত না।

জাহিরী বিদ্যা অর্জন সমাপ্তির পর তিনি শায়খ আবু বকর সিল্লাবাফের নিকট মুরীদ হন। কতক বর্ণনায় জানা যায় যে, তিনি শায়খ ‘ইযুদ্দীন সনজাসীর মুরীদ ছিলেন। কতক বর্ণনায় অন্য নামের উল্লেখ আছে। হতে পারে যে, তিনি এঁদের সবার কাছ থেকেই ফয়েয লাভে ধন্য হয়েছিলেন।

এতসব সত্ত্বেও যখন তিনি তৃপ্ত হলেন না, তখন আল্লাহওয়ালা মানুষের সন্ধানে চতুর্দিকে ঘুরতে শুরু করলেন। তিনি এরূপ সাধারণ বেশে সফর করতেন যে, স্বয়ং তাঁর বিলায়েত ও কামালিয়ত সম্পর্কে কেউ কিছু জানতেই পারত না। তিনি কালাে পশমী কম্বল পরিধান করতেন এবং যেখানেই যেতেন সাধারণ সরাইখানায় অবস্থান করতেন এবং দরােজায় দামী তালা ঝুলিয়ে দিতেন, যাতে লােকে তাকে ধনী ব্যবসায়ী মনে করে। ঘরের ভেতর চাটাইয়ের বিছানা ছাড়া আর কিছুই থাকত না।

সফরের আধিক্যের কারণে লােকে তাকে ‘শামুস পক্ষী” বলে ডাকতে শুরু করেছিল। তিনি তাবরী, বাগদাদ, জর্দান, রূম, কায়সারিয়া ও দামেস্কে সফর করেন। তিনি পায়জামার ফিতা বুনে বিক্রি করতেন এবং এটাই ছিল তাঁর জীবিকা অর্জনের মাধ্যম। খাদ্য গ্রহণের অবস্থা এ রকম ছিল যে, দামেস্কে তিনি যে এক বছর অবস্থান করেন তখন সপ্তাহে এক পেয়ালা যবাইকৃত পশুর মাথার তৈরি শুরুয়া- তাও কোনরূপ তেল ছাড়া পান করতেন। তার সাহচর্যের বােঝা বহন করতে পারে এমন কাউকে তিনি পেতেন না। অধিকাংশ সময় তিনি দু’আ করতেন : প্রভু হে! আমাকে এমন কোন সঙ্গী জুটিয়ে দাও যে আমার সাহচর্যের ভার বইতে পারে।

শামস তাবরীষীর সঙ্গে জালালুদ্দিন রুমীর সাক্ষাৎ ও বিরাট পরিবর্তনঃ

মওলানা শামস তাবরীষীর শায়খ তাকে রূম যাবার নির্দেশ দেন এবং বলেনঃ সেখানে একটি দগ্ধ অন্তরের সাক্ষাৎ পাবে; তাঁকে আলােকিত করে এস। ৬৪২ হিজরীর ২৬শে জুমাদা আল-উখরার সােমবার তারিখে তিনি কাউনিয়া পৌছেন। এবং সেখানে চিনি বিক্রেতাদের মহল্লায় অবস্থান করেন। একদিন দেখতে পেলেন, মওলানা পশুপৃষ্ঠে সওয়ার হয়ে আসছেন আর তার চারপাশের লােকেরা তার জ্ঞান-ভাণ্ডার থেকে উপকৃত হয়ে চলেছে। শাম্স অগ্রসর হয়ে জিজ্ঞেস করলেন? রিয়াযত ও জ্ঞানের উদ্দেশ্য কি?

মওলানা জালাল উদ্দিন রুমি বললেনঃ আদব ও শরীয়ত সম্পর্কে জ্ঞাত হওয়া। শাম্স তাবরীযী বললেন : না, আসল লক্ষ্যে না পৌছা পর্যন্ত এগিয়ে যাওয়া। এরপর তিনি হাকীম সানাঈ-এর নিম্নোক্ত কবিতাটি আবৃত্তি করেন :

علم كزنو ترانه بستاند + جهل ازاں علم به بود بسیار

যে জ্ঞান তােমার অহংবােধকে তােমা থেকে ছিনিয়ে নিতে পারে না, সে জ্ঞানের চেয়ে মূর্খই উত্তম।

মওলানা জালাল উদ্দিন রুমি এতে বিস্মিত হন। অপরদিকে শাম্স এর তীর লক্ষ্যভেদে সক্ষম হয়। মওলানা জালাল উদ্দিন রুমি তাকে সংগে করে নিজের ঘরে নিয়ে আসেন এবং আফলাকীর ভাষায় চল্লিশ দিন পর্যন্ত তাঁর সঙ্গে এক কামরায় থাকেন। ঐ সময় উক্ত কামরায় কারাে প্রবেশাধিকার ছিল না। সিপাহসালার বলেনঃ ছয় মাস পর্যন্ত সালাহউদ্দীন যরকুবের কামরায় এ দু’জন বুযুর্গ একান্তে অতিবাহিত করেন। শায়খ সালাহউদ্দীন ব্যতিরেকে আর কারােরই উক্ত কামরায় প্রবেশাধিকার ছিল না।

শাম্স তাবরীযী-এর সাক্ষাৎ মওলানা জালাল উদ্দিন রুমিকে এক নতুন জীবন, নতুন চেতনা ও নতুন জগত দান করে। মওলানা জালাল উদ্দিন রুমি নিজেই বলেন :

شمس تبریزی بما راه حقیقت بنمود +ماز فيض قدم اوست که ایمان داریم

শামস তাবরীয আমাদেরকে হাকীকতের রাস্তা দেখিয়েছেন। এটা তারই পদযুগলের ফয়েয যে, আমরাও আজ ঈমানের অধিকারী।

এতদিন পর্যন্ত মওলানা ছিলেন সে যুগের উস্তাদ ও শ্রেষ্ঠতম বুযুর্গের আসনে আসীন। ছাত্র-শিক্ষক, জ্ঞানী-গুণী, সূফী-দরবেশ সবাই ছিল তাঁর অনুগ্রহপ্রাথী, তার থেকে উপকৃত হতে আগ্রহী। কিন্তু আজ তিনি নিজেই অনুগ্রহপ্রার্থী আর শামস তাবরীয তাঁকে ইরশাদ ও ফয়েয প্রদানের মালিক। মওলানার সাহেবজাদা সুলতান ওয়ালাদ বলেন :

شیخ استاذ گشت نو آموز + درس خواندی بخدمتش هر روز گرچه در علم فقر کامل بود + علم نو بود کو بو به نمود

‘আলিমদের শায়খ ও উস্তাদ নতুন করে শিক্ষার্থী সাজলেন; শাম্স-ই তাবরীযীর খেদমতে তিনি দৈনিক পাঠ গ্রহণ করতেন। দরবেশীর ইলমে তিনি কামিল থাকা সত্ত্বেও তাঁকে একটি নতুনতর ইলম প্রত্যক্ষ করান।

খােদ মওলানা (র) তার নিজের মুখেই এ সম্পর্কে বলেন :

زاهد بودم ترئه گویم کردی * سرفتنه بزم و باده جویم کردی سجاده نشين بار قاره بودم + بازیچه کو دکاں گویم کردی

আমি ছিলাম দরবেশ, (তিনি) আমাকে গায়ক বানিয়ে দিলেন, বানিয়ে দিলেন মদ্যপায়ীদের সর্দার ও মদখাের মাতাল। আমি ছিলাম মর্যাদাবান গদ্দীনশীন পীর; তিনি আমাকে অলি-গলিতে ক্রীড়ারত শিশুদের খেলনায় পরিণত করলেন।

ফল দাঁড়াল এই যে, শামস-ই-তাবরীযীর সঙ্গে সাক্ষাৎ হবার পর থেকে মওলানা শিক্ষা দান, ওয়াজ-নসীহত সব কিছুই ছেড়ে দিলেন। তিনি বলেছেন :

عطار دوار دفتر پاره بودم + زدشت او زمانی می نشستم چو دیدم نوح پیشانی ساقی + شدم مست و قلم هارا شکستم

আমি বুধ গ্রহের মত প্রতিটি মজলিসের আলােচ্য বিষয় ছিলাম। এবার অনেক কাল যাবত তার ময়দান থেকে বসে পড়েছি। নূহ (আ)-এর মত ললাটধারী পানীয় পরিবেশনকারী (সাকী)-কে যখন দেখতে পেলাম তখন পাগল হয়ে গেলাম এবং কলমগুলাে ভেঙে ফেললাম।

ব্যাপক আলােড়ন সৃষ্টিঃ

মওলানা যখন এভাবে অন্যান্য সব সম্পর্ক ছিন্ন করে প্রতিটি কথায় শামস তাবরীযীকে অনুসরণ ও অনুকরণ করতে লাগলেন, তখন বিষয়টি মওলানার শাগরিদ ও মুরীদদের নিকট ভীষণ পীড়াদায়ক ঠেকল। অতঃপর এ নিয়ে চারদিকেই আলােড়ন ও গুঞ্জরণের সৃষ্টি হল।

শাম্স-এর অবস্থা সম্পর্কে জনসাধারণ তেমন ওয়াকিফহাল ছিল না। মুরীদদের ধারণা, “আমরা বছরের পর বছর ধরে মওলানার খেদমতে কাটিয়ে দিলাম, মওলানার কারামত দেখলাম, তার খ্যাতি চতুর্দিকে ছড়িয়ে পড়ল। অথচ আজ কোথা থেকে নাম-গােত্রহীন এক লােক এসে তাকে আমাদের মাঝ থেকে এমনভাবে ছোঁ মেরে ছিনিয়ে নিয়ে গেল যে, তার চেহারা দেখার সুযােগ থেকেও আমরা বঞ্চিত হয়ে গেলাম। তার লেখাপড়া, শিক্ষা দান, ওয়াজ-নসীহত সবই বন্ধ হয়ে গেল। এ লােক নিঃসন্দেহে কোন যাদুকর হবে, নয়ত প্রতারক। অন্যথায় তার কী সাধ্য যে, পর্বতসম এই ব্যক্তিত্বকে খড়কুটোর মত ভাসিয়ে নিয়ে যায়।”

মােট কথা, সবাই শামস তাবরীযীর দুশমনে পরিণত হল। তারা মাওলানার সামনে কিছু বলতে পারত না বটে, তবে তিনি একটু এদিক-সেদিক গেলেই তারা শামসকে ভাল-মন্দ বলত এবং রাত-দিন এই ধান্ধায় ফিরত কখন ও কিভাবে হযরত শামস তাবরীযীকে সেখান থেকে বিতাড়িত করা যায় যাতে করে তারা পূর্বের মত মওলানার সাহচর্য লাভ করে ধন্য হতে পারে।

শাম্স-এর অন্তর্ধান

হযরত শামসুদ্দীন এসব লােকের গােস্তাখী নীরবে সইতে থাকেন। তিনি বুঝতে পেরেছিলেন যে, মওলানার প্রতি ভক্তি-শ্রদ্ধার কারণেই এসব লােক এভাবে মনঃক্ষুন্ন। কিন্তু তাদের আচরণ যখন সীমা লঙ্ন করল এবং তিনি বুঝতে পারলেন যে, এবার গােলযােগ সৃষ্টির সমূহ আশংকা রয়েছে, তখন তিনি একদিন নীরবে নিঃশব্দে কাউনিয়া পরিত্যাগ করলেন। আফলাকী তাঁর এই প্রথম অন্তর্ধানের তারিখ ৬৪৩ হিজরীর ১লা শাওয়াল রােজ বৃহস্পতিবার বলে উল্লেখ করেছেন। সে হিসাবে প্রথমবার তিনি সােয়া বছরের মত কাউনিয়ায় অবস্থান করেন।

শাম্স-এর বিচ্ছেদ ছিল মওলানা জালাল উদ্দিন রুমীর কাছে অত্যন্ত কষ্টকর ও পীড়াদায়ক। মুরীদেরা যা ভেবেছিল– ঘটল তার উল্টোটি। শাম্স চলে যাবার পর মওলানা জালাল উদ্দিন রুমী তাদের প্রতি কী মনােযােগ দেবেন, আগে যেটুকু দিতেন এখন তাও ছেড়ে দেবার উপক্রম হল। কিছু সংখ্যক নাদানের কারণে সৎ ও বিশ্বস্ত লােকেরাও মওলানার সাহচর্য থেকে এভাবে বঞ্চিত হতে হল।

মওলানা জালাল উদ্দিন রুমীর অস্থিরতা এবং শাম্স তাবরীযী-এর প্রত্যাবর্তনঃ

সিপাহসালারের বর্ণনা মুতাবেক দামেস্কও থেকে মওলানার নামে শামসুদ্দীনের পত্র না আসা অবধি এই বিচ্ছেদ ও বিচ্ছিন্নতা বজায় ছিল। পত্র প্রাপ্তির পর মওলানার অবস্থার কিছুটা পরিবর্তন ঘটে এবং শাম্স-এর প্রতি আগ্রহ ও প্রেম তাকে ‘সামা’র প্রতি আকৃষ্ট করে তােলে। তিনি সে সব লােকের প্রতি আগের মতই নেক নজর অব্যাহত রাখেন যারা শামস-এর বিরুদ্ধে কোনরূপ অসদাচরণ করেনি। ঐ সময় মওলানার জালাল উদ্দিন রুমী হযরত শাম্স-এর খেদমতে পত্রাকারে চার লাইন কবিতা লিখে পাঠান। এতে তিনি নিজের অস্থিরতা এবং তাঁর প্রতি অপরিসীম আগ্রহের কথা ব্যক্ত করেন। তিনি বলেন :

ایها النور في الفواد تعال + غابة الوجد والمراد تعال ايها السابق الذي سبقت + منك مصدوقة الوداد تعال چوں بیانی زهی کشاد و مراد + چوں نیانی زهے کسا نعال

انت كالشمس اذ دشت ونات + با قريبا على البعد تعال

ওহে আলাে! আমার হৃদয়ে এস; হে আমার প্রেম ও লক্ষ্যের শেষ গন্তব্যস্থল! এস। এস, ওহে অগ্রগামী! তােমার দিক থেকে সত্যিকার প্রেম তাে আগেই প্রকাশ পেয়েছে; অতএব আর দেরী নয়, এস। যখন তুমি আসবে তখন তা হবে বিরাট বিজয় ও সাফল্য। যদি তুমি না আস, তাহলে সেটা হবে বিরাট ক্ষতি; অতএব তুমি এস। তুমি তাে সূর্যের মত দীপ্তিময়। চাই কাছে থাক আর দূরেই থাক। হে দূরবর্তী থেকেও নিকটবর্তী, এস।

ইতিমধ্যে গােলমাল কিছুটা স্তিমিত হয়ে যায়। অবকাশ ও প্রসন্নতা লাভের পর লোকেরা শাম্স-এর বিরােধিতা পরিত্যাগ করে। মওলানা শামসকে ফিরিয়ে আনবার উপায় খুঁজে বের করেন। পুত্র সুলতান ওয়ালাদকে ডেকে বলেনঃ তুমি আমার পক্ষ থেকে শাহ-ই-মকবুলের দিকে ছুটে যাও এবং এটা নিয়ে গিয়ে তার পায়ের ওপর উৎসর্গ কর-আর আমার হয়ে বল, যে মুরীদেরা গােস্তাখী করেছিল তারা সকলেই তওবা করেছে এবং আশা করছে, যেসব অন্যায় ও ত্রুটি হয়ে গেছে তা যেন মাফ করে দেওয়া হয়। এবার দয়া করে তিনি যেন এদিকে পা ফেলেন। তিনি তার হাত দিয়ে যে চিঠি লিখেছিলেন তা ছিল নিম্নরূপ :

که از آن دم که تو سفر کردی + از حلاوت جدا شدیم چو موم همه شب چو شمع می سوزیم + ز آتشش جفت و زا أنگبين محروم در فراق جمال تو مارا + جسم و پران و جان از و چون پوم های منان وابدیں طرف پرتاب + زفت کن پیل عیش را خرطوم به حضورت سماع نیست حلال + همچو شیطان طرب شده مرجوم

و يك غزل ہے تو هیچ گفته نشد + نارسیداں مشرفه مفهوم پس بذوق سماع نامه نو + غزل پنج و شش بشد منظوم شام از تو چو صبح روشن باد + اے بنو فخر شام و ارمن وروم

যে মুহূর্তে তুমি এখান থেকে চলে গেছ, আমি মােমের মত গলে গেছি, বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছি জীবনের সকল স্বাদ ও আহলাদ থেকে। সারা রাত আমি মােমবাতির মত জ্বলতে থাকি; আগুনের সঙ্গে সাক্ষাৎ ঘটলেও মধুর স্বাদ থেকে বঞ্চিত আমি।। তােমার সৌন্দর্য সুখ থেকে বঞ্চিত হবার কারণে আমার দেহ-মন পেঁচকের মত বিরান হয়ে গেছে। একটু এদিকে তােমার অশ্বের গতি ফেরাও; আমার জীবনের হস্তীশুণ্ডকে একট ম্যৰূত কর। তােমার উপস্থিতি ব্যতিরেকে সামা’র মজলিস বৈধ নয়; আমার জীবন মালঞ্চের ওপর শয়তানসদৃশ বােঝা চেপে বসেছে। তােমা ব্যতিরেকে কোন গীতি গীত হয়নি, এমতাবস্থায় মুবারক লিপি এসে পেীছল। তােমার পবিত্র লিপি শােনার আনন্দে পাঁচ-ছ’টি কাব্য লিখে ফেলেছি। তােমার সন্দর্শনে আমার সন্ধ্যাও যেন ভােরের ন্যায় আলােকিত হয়ে ওঠে। ওহে। যার সত্তার জন্য শাম, আরমান ও রােম গর্বিত।

সুলতান ওয়ালাদ হযরত শামসকে অত্যন্ত সম্মান ও শ্রদ্ধার সঙ্গে কাউনিয়া নিয়ে আসেন।

শাম্স-এর দ্বিতীয় দফা অন্তর্ধানঃ

হযরত শাম্স-এর কাউনিয়া প্রত্যাবর্তনে মওলানার খুশির সীমা ছিল না। যে সমস্ত লােক গােস্তাখী করেছিল তারা সবাই এসে ক্ষমা প্রার্থনা করে। বেশ কিছুকাল উভয়ের এই নির্মল সাহচর্য অব্যাহত থাকে। ইতিমধ্যে হযরত শামস-এর সঙ্গে মওলানার ঐক্য ও ঘনিষ্ঠতা পূর্বের তুলনায় আরাে বৃদ্ধি পায়। কিন্তু দুঃখের বিষয়, এ সুখ ও সৌভাগ্য বেশি দিন টিকল না। আবার আবিলতা ও মালিন্যের উপকরণ জমে উঠতে লাগল। মওলানার কামরার নিকটই সুফফা দালানের একদিকে হযরত শীস অবস্থান করতেন। শামস সেখানে তাঁর স্ত্রীসহ বসবাস করতেন। কাউনিয়াতেই তিনি এ বিয়ে করেন। মওলানার মেজোপুত্র (চিল্পী ‘আলাউদ্দীন) যখন মওলানার ঘরে যেতেন তখন এদিক দিয়েই যেতেন। কিন্তু এদিক হয়ে তার এ যাওয়া-আসা মওলানা শামসুদ্দীন তাবরীযী পছন্দ করতেন না। তিনি কয়েকবার তাকে অত্যন্ত স্নেহ-কোমল কণ্ঠে কথাটি বােঝাবার চেষ্টা করেন, কিন্তু তা উল্টো ‘আলাউদ্দীনের মনঃকষ্টের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। হযরত শামসুদ্দীন সুলতান ওয়ালাদকে বেশি স্নেহ করেন- এটাও ছিল তার মর্মপীড়ার অন্যতম কারণ। আলাউদ্দীন বিষয়টি নিয়ে অন্যদের সঙ্গেও আলােচনা করেন। যে সমস্ত লোক এ ধরনের একটি সুযােগের অপেক্ষা করছিল তারা এর ওপর আরাে একটু রঙ চড়ায়। তারা বলতে থাকে : বেশ তাে লােক! কোথাকার কে, জানা নেই- শােনা নেই,হঠাৎ উড়ে এসে জুড়ে বসেছে। মওলানার ঘর দখল করে তার ছেলেকেই ঘরে আসতে দিচ্ছে না!

হযরত শামসুদ্দীন কেবল বিনয় ও সহিষ্ণুতার কারণে এতদিন এ বিষয়ে মওলানার সঙ্গে কোন আলাপ করেননি। কিন্তু পরিস্থিতি যখন সীমা অতিক্রম করল তখন তিনি সরাসরি সুলতান ওয়ালাদকে বললেন : ঐসব লােকের আচরণে এটা বুঝতে পারছি যে, এবার এমনভাবে অন্তর্ধান করতে হবে যাতে কেউ আর আমার খোজ না পায়। মওলানার কতক গফল থেকে পরিষ্কার প্রতিভাত হয় যে, তিনিও এ ব্যাপারে অবহিত ও আশংকিত ছিলেন এবং কবিতার মাধ্যমে এর থেকে বিরত হবার জন্য শায়খের কাছে অনুনয়-বিনয় করেছিলেন।

যা-ই হােক, হযরত শামসুদ্দীন-এর বিরুদ্ধে লােকের মন-মানসিকতা পুনরায় তুঙ্গে ওঠে। তিনি নিজেও অতিষ্ঠ হয়ে পড়েন। একদিন দেখা গেল যে, তিনি অকস্মাৎ অন্তর্ধান করেছেন।

ناگهان گم شد از میان همه + تار و داز دل اندهان همه

অকস্মাৎ তিনি সবার মাঝ থেকে হারিয়ে গেলেন যাতে করে অন্তর-মন থেকে সর্বপ্রকার অস্থিরতা খতম হয়ে যায়।

মওলানা জালাল উদ্দিন রুমির অস্থিরতাঃ

সকাল বেলা মওলানা জালাল উদ্দিন রুমি যখন মাদরাসায় এসে শাসকে ঘরে পেলেন নাতখনই চিৎকার করে ওঠেন এবং সুলতান ওয়ালাদের ঘরে গিয়ে তাকে ডেকে বলেন :

بہاو الدین چه خفته بر خیز وطلب شیخت کن که باز مشام جان را از فوائح لطف او خالی می بابیم

আরে বাহাউদ্দীন। শুয়ে রয়েছ কেন? ওঠো, স্বীয় শায়খ-এর অনুসন্ধান কর । আমি আমার অন্তরের ঘ্রাণেন্দ্রিয়কে তাঁর মেহেরবানীর সুরভি থেকে বঞ্চিত পাচ্ছি।

দু’তিন দিন যাবত তিনি চতুর্দিকে অনুসন্ধান করতে থাকেন। কিন্তু কোথাও হযরত শাম্স-এর সন্ধান পাওয়া গেল না। এবারে মওলানা শাম্স-এর অন্তর্ধানে মওলানা রূমীর অবস্থা আগের তুলনায় আরাে বেশী পরিবর্তিত হয়ে যায়।

بے سر و پاز مشق او چو ذو النون

شیخ گشت از فراق او مجنون

শায়খ (মওলানা রুমী) তার বিচ্ছেদে ব্যথায় পাগল হয়ে যান এবং তার প্রেমে যুন-নূন মিসরীর মত দিশেহারা হয়ে পড়েন।

যে সমস্ত লােকের কারণে তাঁর জীবন অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছিল মওলানা তাদের সবাইকেই তার (মওলানা রুমীর) নিজের সাহচর্য থেকে বের করে দেন। এবার তিনি গযল গাওয়া ও সামা মাহফিলেই সময় ব্যয় করতে শুরু করেন। এ ঘটনা ৬৪৫ হিজরীর।

হযরত শামস (র) গায়েব হয়ে যাবার পর মওলানা দুদিন চতুর্দিকে তার তালাশ করেন। কোনভাবেই যখন তার সন্ধান পাওয়া গেল না তখন তার নিজের অবস্থার পরিবর্তন শুরু হয়। সামা’র তরীকা (পন্থা-পদ্ধতি) তাে তিনি প্রথমেই এখতিয়ার করেছিলেন। এখন তার অবস্থা হ’ল, সামা ভিন্ন তিনি একটি মুহূর্তেও অতিবাহিত করতে পারেন না। মাদ্রাসায় তিনি টহল দিয়ে ফিরতেন এবং প্রকাশ্যে ও গােপনে শােরগােল করতেন, করতেন ফরিয়াদ। এ সময় তিনি হযরত শামস-এর বিচ্ছেদ যন্ত্রণায় অনেকগুলাে মর্মস্পর্শী গজল রচনা করেন। তাঁর বেদনা-বিধুর গজলগুলির অধিকাংশই এ সময়ের রচনা।

এসব অস্থিরমনা ও চিত্তচাঞ্চল্য সত্ত্বেও মওলানার মন থেকে এ চিন্তা ও চেতনা কিন্তু একেবারে মুছে যায়নি যে, রােমকদের গৃহযুদ্ধ, মিসরীয়দের তুর্কতাযী এবং তাতারীদের ধ্বংসকর অভিযানের কারণে গােটা দেশই যেখানে তছনছ হয়ে যাচ্ছে, সে ক্ষেত্রে এই অশুভ ক্ষণে না জানি হযরত শাম্স-এর কি হয়েছে।

হযরত শামসুদ্দীনের গায়েব হয়ে যাবার পর তাকে পাবার আকাঙ্খায় মওলানার অবস্থা হয়েছিল এরূপ যে, যদি কোন লােক মিছেমিছিও বলত যে, সে হযরত শামুসকে অমুক জায়গায় দেখেছে অমনি মওলানা নিজের পরিহিত পােশাক খুলে তাকে দিয়ে দিতেন এবং শুকরিয়া আদায় করতেন।

সিরিয়া সফর ও সান্ত্বনা লাভঃ এরূপ উৎসাহ-উদ্দীপনার মাঝে মওলানা একদিন সিরিয়া সফরের উদ্দেশে বেরিয়ে পড়েন। তাঁর সঙ্গী-সাথীরাও তাঁর সঙ্গে বেরিয়ে পড়ে। এভাবেই তিনি দামেস্কে পেীছেন এবং সেখানকার মানুষের অন্তর-মানসে প্রেমের আগুন জ্বালিয়ে দেন। সকল লােকই বিস্ময়াপন্ন হত, এরকম একজন আলিম ও ফাযেল ব্যক্তি কেন এরূপ দেওয়ানাপ্রায় হচ্ছেন? শাম্স তাবরীয আসলে বস্তুটা কী যার পেছনে এরূপ একজন বিশিষ্ট ব্যক্তি মাথা কুটে মরছেন।

দামেস্কে যখন শাম্স-এর কোন পাত্তা পাওয়া গেল না তখন মওলানা বললেন : আমি আর শাম্স দুজন নই। তিনি যদি হন সূর্য তাহলে আমি তার আলােক-বিন্দু; আর তিনি যদি হন সমুদ্র তাহলে আমি তার (পানির) ফোটা। আলােক-বিন্দুর অস্তিত্ব তাে সূর্য থেকেই আর পানির ফোঁটার যে আর্দ্রতা তার উৎসও তাে সমুদ্রই। তাহলে আর পার্থক্যটা রইল কি? কয়েকদিন পর সিরিয়া (শাম) থেকে তিনি রূমের দিকে রওয়ানা হন।

অতঃপর কয়েক বছর তিনি কাউনিয়া অবস্থান করেন। এখানে তার প্রেমাবেগ পুনরায় উথলে ওঠে। কিছু লােক সাথে করে তিনি আবার সিরিয়া পানে রওয়ানা হন। এরপর কাউনিয়া প্রত্যাবর্তন করেন। এবারে তিনি এই ধারণা নিয়ে প্রত্যাবর্তন করেন, আমিই শামস তাবরীযী। শাম্স তাবরীযীর অনুসন্ধান আর কিছুই ছিল না, বরং নিজেকেই খুঁজে ফিরছিলাম আমি। এবার তিনি এই ধারণা নিয়ে ফিরে আসেন যে, শাম্স-এর ভেতর যা কিছু ছিল, স্বয়ং আমার মধ্যেও তা বর্তমান।

এবার দামেস্ক থেকে প্রত্যাবর্তনের পর মওলানা হযরত শাম্স-এর সঙ্গে মিলিত হবার ব্যাপারে একেবারে হতাশ হয়ে পড়েন। কিন্তু যে অবস্থা তিনি শামস-এর মাঝে প্রত্যক্ষ করতেন- তা তিনি নিজের মধ্যেই প্রত্যক্ষ করতে থাকেন। শায়খ সালাহউদ্দীন যরকূব বলেন,দামেস্ক থেকে দ্বিতীয় দফা প্রত্যাবর্তনের পর মওলানা কিছুদিন চুপচাপ থাকেন। এরপর তিনি শায়খ সালাউদ্দীনকে তাঁর গুপ্তভেদের সঙ্গী ও খলীফা বানান। ৬৪৭ হিজরীতে তিনি তাকে স্বীয় বিশিষ্ট সহচর নিযুক্ত করেন এবং হযরত শামসুদ্দীনের পরিবর্তে তাকেই স্বীয় সহযােগী ও অন্তরঙ্গ বন্ধু হিসাবে গ্রহণ করেন।

شه صلاح الدين زبعد شمس دین + گشت اور اندریں درزش معين حال وقالش از وجودش می فزود + سر مائے نادر از وی می شنود

صلاح اور داد و اشيخي و خليفنی – وسر لشکری جنود الله منصوب فرمود دیاران را | باطاعت کے مامور ساخت . ص. ۹۳ (ندوی)

শাহ সালাহ উদ্দীনই শামসুদ্দীন তাবরীযীর এ কাজে তার সাহায্যকারী হন। তাঁর হাল-চাল, কাজ-কর্ম ও কথাবার্তায় তার উন্নতি ঘটে; তার থেকে অনেক বিস্ময়কর গুপ্ত কথা তিনি শােনেন।

শায়খ সালাউদ্দীন কাউনিয়ার নিকটবর্তী একটি গ্রামের অধিবাসী ছিলেন। গরীব পিতামাতার সন্তান ছিলেন। তিনি ছিলেন মৎস্যজীবী। অবশ্য সালাহ উদ্দীন নিজে স্বর্ণকারের পেশা গ্রহণ করেন। প্রথম থেকেই তিনি আমানতদারী, সততা ও বিশ্বস্ততার ক্ষেত্রে মশহুর ছিলেন। সায়্যিদ বুরহানুদ্দীন যখন কাউনিয়ায় আসেন, তখন তিনি তার মুরীদ হন এবং তাঁর দরবারে বিশিষ্ট আসন লাভ করেন। সায়্যিদ বুরহান উদ্দীনের ইনতিকালের পর তিনি মওলানার হাতে নতুন করে বায়’আত হন। মৃত্যুর দশ বছর পূর্বে তিনি মওলানার এরূপ নৈকট্য লাভ করেন যে, এই দশ বছর তিনি তাঁর বিশিষ্ট খলীফা হিসাবেই কাটান। ৬৫৭ হিজরীতে ১লা মুহাররাম তারিখে শায়খ ইনতিকাল করেন।

শায়খ যরকূবের সান্নিধ্যের কারণে পুনরায় গােলযােগ দেখা দেয়। এবার লােকের অভিযােগ ছিল যে, এর চেয়ে শামস তাবরীযীই বরং ছিলেন ভাল। তিনি আর যা-ই হােন, একজন ‘আলিম তাে নিশ্চয়ই ছিলেন। আর এ লােক হচ্ছে এখানকারই অধিবাসী। সবাই তাকে একজন সাধারণ লােক হিসাবে জানে। জীবন গহনার নকশা খােদাই করেছে, আর এখন মওলানার বন্ধু হয়ে বসেছে। আশ্চর্য লাগে যে, মওলানা নিজে এত বড় সম্মান ও মর্যাদার অধিকারী হওয়া সত্ত্বেও এমন একজন লােককে ভক্তি ও শ্রদ্ধা প্রদর্শনে কেন এতটা বাড়াবাড়ি করেন! শায়খ এসব শােনার পর বলেনঃ লােকের মনঃকষ্টের কারণ যে, মওলানা কেন আমাকে সবার মাঝে বৈশিষ্ট্য দান করলেন। কিন্তু তারা আসল কথা বুঝতে পারছে না যে, মওলানা নিজেই নিজের ‘আশিক। আমি তাে একটা বাহানামাত্র।

দশ বছর পর্যন্ত মওলানাকে সাহচর্য প্রদানের পর শায়খ হঠাৎ করেই অসুস্থ হয়ে পড়েন এবং পহেলা মুহাররাম পরিপূর্ণ আত্মিক প্রশান্তির সাথে এই নশ্বর পৃথিবী ত্যাগ করেন।

চিল্পী হুসামুদ্দীনঃ

শায়খ সালাউদ্দীনের ইনতিকালের পর মওলানা চিল্পী হুসামুদ্দীন ইবনে আখী তুর্ককে স্বীয় নায়েব ও খলীফা নিযুক্ত করেন। চিল্পী হুসামুদ্দীন ছিলেন মওলানার বিশিষ্ট মুরীদদের অন্যতম এবং মওলানার ইনতিকালের পর এগার বছর পর্যন্ত তিনি মওলানার খিলাফতের দায়িত্ব পালন করেন। তিনি মূলত তুৰ্ক ও দেশীয় হিসাবে আরামীয় ছিলেন। রূমের মশহুর ও প্রভাবশালী খান্দান “আখী”-র সঙ্গে সম্পর্কিত ছিলেন তিনি।

হযরত শামসুদ্দীন তাবরীষী ও শায়খ সালাহউদ্দীনেরও তিনি মুরীদ ছিলেন। | তাদের থেকেও তিনি উপকৃত হয়েছিলেন।হযরত হুসামুদ্দীন চিল্পী তার সমস্ত গােলাম ও কর্মচারীকে প্রকাশ্যে বলে রেখেছিলেন, তারা যেন নিজেদের মর্জি মতই কাজ করে। আস্তে আস্তে তিনি তাঁর মালিকানাধীন সমস্ত সম্পত্তি মওলানার খিদমতে ব্যয় করে ফেলেন। শেষে তিনি গােলামদেরকেও আযাদ করে দেন। মওলানাকে তিনি এতটা সম্মান করতেন যে, কোনদিন তিনি মওলানার ওযুখানায় ওযূ করতেন না। তীব্র ঠাণ্ডা ও শীত, গুঁড়ি গুড়ি বরফ পড়ছে, এতদসত্ত্বেও তিনি ঘরে গিয়ে ওযু করে আসতেন। অপর দিকে তাঁর সঙ্গে মওলানার আচরণও ছিল এমনি যে, বহিরাগত কোন দর্শক তা দেখার পর খােদ মওলানাকেই মুরীদ ভেবে বসত।

মসনবী প্রণয়নঃ

মছনবী শরীফ প্রণয়ন এ যুগের একটি উল্লেখযােগ্য কীর্তি। এতে হযরত হুসামুদ্দীনের ক্রমাগত তাকীদ ও চাপের একটি বিরাট ভূমিকা ছিল। যদি বলা হয় যে, মসনবী শরীফের অস্তিত্ব লাভ ঘটেছিল তাঁরই কারণে তাহলে সম্ভবত বেশী বলা হবে না।

সাথী নির্বাচনের কারণঃ

মওলানা কোন না কোন সাথী ব্যতিরেকে আরাম পেতেন না। শামসুদ্দীনের পর সালাহুদ্দীন এবং সালাহুদ্দীনের পর হুসামুদ্দীন তাঁর গুপ্ত-রহস্য সঙ্গী ও অন্তরঙ্গ সাথী ছিলেন, বরং এ সিলসিলা যদি আরাে বাড়ানাে যায় তাহলে পরিষ্কার দেখা যাবে যে, সায়্যিদ বাহাউদ্দীন তিরমিযীও এ দলে শামিল যদিও তিনি ভিন্ন অবস্থান থেকে এ দলে এসেছিলেন। সায়্যিদ বাহাউদ্দীন তিরমিযীর ইনতিকাল এবং হযরত শাম্স-এর আগমন মধ্যবর্তী পাঁচ বছর মওলানা এমনভাবে অতিবাহিত করতেন যাতে মনে হত, এ সময় তিনি একটা কিছুর ঘাটতি অনুভব করছেন। এর থেকে যে ফলাফল বেরিয়ে আসে তা হল এই যে, মওলানার ভেতর যে কামালিয়াত প্রচ্ছন্ন ছিল সে সবের প্রকাশের জন্য কোন না কোন আন্দোলক ও উৎসাহদাতার প্রয়ােজন ছিল। তাঁর রচিত “দীওয়ান” ও “মছনবী” এসব প্রচ্ছন্ন আন্দোলনেরই সাক্ষী। কেবল হুসামুদ্দীনের অন্যমনস্কতার কারণে মছনবী শরীফের রচনা দু’বছর বন্ধ থাকে।

মওলানা কোন লােককে তাঁর কাশফ ও কারামতের কারণে সাহচর্যের জন্য নির্বাচিত করেন নি। এ ক্ষেত্রে তাঁর অভিমত ছিল, মুহব্বতের কারণে সহজাতিত্ব। মওলানা নিজে তাঁর পুত্র সুলতান ওয়ালাদের এক প্রশ্নের উত্তরে বলেছিলেন, “সম্পর্কের দিক দিয়ে এক জাতিত্বের কারণেই তাকে আমি বিশিষ্ট বন্ধু হিসাবে জানি।” তিনি আরও বলেছেন : যে প্রেম ও ভালবাসা সৃষ্টি হয় সম্পর্কের কারণে

তার পরিণতিতে লজ্জিত হবার কিছু নেই। প্রকৃত ভালবাসা ও সম্পর্ক সৃষ্টির দ্বারা দুনিয়া ও আখিরাতে কোথাও লজ্জিত হতে হয় না। সেজন্যই কিয়ামতের ময়দানে ইসাব-নিকাশে আটকে পড়া লােকগুলাে অভিলাষ জাহির করবে, i i »; 91 “হায়। আমি যদি অমুককে বন্ধু হিসাবে গ্রহণ না করতাম।”

মুত্তাকী প্রেমিকদের গুণাবলী হবে নিম্নরূপঃ

الأخلاه يومئذ بعضهم لبعض عدو الأ الثقين.

বন্ধুজনেরা পরস্পরের দুশমন হবে সেদিন; একমাত্র মুত্তাকীরাই হবে এর ব্যতিক্রম। মওলানা নিজে বলেন :

موجب ایمان نه باشد معجزات + ليك جنسیت بود جذب صفات

মু’জিযা ঈমানের কারণ হয় না, বরং স্বজাতিত্বের মিল গুণাবলী আত্মস্থ করবার মাধ্যম হয় (অর্থাৎ পারস্পরিক সম্পর্ক একের গুণ অন্যের মাঝে সংক্রমিত করে)।

সিপাহসালার বলেন ঃ মওলানার ইনতিকালের চল্লিশ দিন পূর্ব থেকেই কাউনিয়ায় ভূমিকম্প হচ্ছিল। আফলাকীর বর্ণনা মুতাবিক মওলানা শয্যাগত থাকাকালে সাতদিন উপর্যুপরি ভূমিকম্প হয়। অত্যধিক ভূমিকম্পের কারণে লােকেরা হাঁপিয়ে ওঠে এবং মওলানার সাহায্যপ্রার্থী হয়। এতে মওলানা বলেন : যমীন ক্ষুধার্ত, সে এখন খাবার চায়। সত্বরই সে তা পাবে আর তােমাদের কষ্টেরও অবসান ঘটবে। সে সময় তিনি নিম্নোক্ত গযল গেয়েছিলেন :

با این همه مهر و مهربانی + دل می دهدت که خشم رانی دین جمله شیشه هائے جانرا + درهم شکنی به لن ترانی

তােমার সেই করুণা ও কৃপা সত্ত্বেও অন্তর-মন তােমাকে ক্রোধান্বিত হবার অনুমতি দিচ্ছে, আর অনুমতি দিচ্ছে ‘লান তারানী’ (তুমি আমাকে কখনাে দেখতে পারবে না) বলে এই সব প্রাণের দর্পণ চূর্ণ করবার।

চিল্পী হুসামুদ্দীন বলেন । একদিন শায়খ সদরুদ্দীন দরবেশ-শ্রেষ্ঠদের সমভিব্যাহারে রুগ্ন মওলানাকে দেখতে আসেন। মওলানার অবস্থাদৃষ্টে তারা ব্যথিত হন এবং আল্লাহর দরবারে তার রােগ মুক্তির জন্য দু’আ করেন। সেই সঙ্গে তারা মওলানার পরিপূর্ণ সুস্থতা ফিরে পাবার ব্যাপারেও আশাবাদ ব্যক্ত করেন। এতে মওলানা বলেনঃ এখন আরােগ্য লাভ আপনার জন্যই বরকতময় হােক! প্রেমিক ও প্রেমাস্পদের মাঝে অন্তরায় হিসাবে চুলের ন্যায় সরু ও চিকন একটি

আবরণ রয়ে গেছে। আপনি কি চান না যে, সেটা উঠে যাক এবং নূর নূরের সাথে গিয়ে মিলিত হােক। | রােগাক্রান্ত অবস্থায় তিনি নিম্নোক্ত গযল শুরু করেন। হুসামুদ্দীন চিল্পী তা লিখছিলেন আর কাঁদছিলেন।

رو سر بنه ببالين تنها مرا رها کن …. بادست اشارتم کرد که عزم سوني ماكن

যাও, তুমি তাকিয়ায় গিয়ে মাথা রাখ! আমাকে একাকী ছেড়ে দাও; আমার মত বিপর্যস্ত, বিপন্ন এবং রাতে বিচরণকারী মুসাফিরকে ছেড়ে যাও। আমি আছি আর আছে একরাশ চিন্তার উত্তাল তরঙ্গ; রাতদিন একাই থাকি। যদি চাও আস এবং বখশিশ কর অথবা চলে যাও এবং জুলুম কর। আমার থেকে পালিয়ে যাও যাতে তুমিও বিপদে না পড়। শান্তির পথ ধর, বিপদের রাস্তা পরিত্যাগ কর। আমি আছি আর সঙ্গে আছে চোখের পানি; পেরেশানির মধ্যে আটকে আছি। (এমতাবস্থায়) আমার অশ্রুমালার ওপর দিয়ে স্টীম রােলার চালাও। বিনা কারণে আমাকে মারে এবং পাষাণের ন্যায় নির্মমভাবে টানাহেঁচড়া করে। এ কথা বলে না যে, প্রতিশােধ নেবার পথ বের কর। মা’শূক (প্রেমাস্পদ)-দের সর্দারের ওপর বিশ্বস্ততা প্রদর্শন বাধ্যতামূলক নয়; ওহে হলুদ চেহারার প্রেমিক! তুমিই ধৈর্য ধর এবং বিশ্বস্ততা প্রদর্শন কর। আমি এমন এক আঘাত পেয়েছি মৃত্যু ভিন্ন যার কোন চিকিৎসা নেই; অতএব, আমি কেমন করে বলি যে, এ ব্যথার চিকিৎসা কর। গত রাতে আমি স্বপ্নে এক বৃদ্ধকে দেখলাম। সে আমাকে হাতের ইশারায়

বলছে, আমার দিকে চলে আসার সংকল্প কর। ঠিক মৃত্যুর কাছাকাছি সময়ে তিনি বলেন :

گرمومنی شیرین هم موئست مرگت + در کافری و تلخي هم كالومیست مردن

যদি তুমি মুমিন হও, মিষ্ট হও, তাহলে তােমার মৃত্যুও মু’মিন; আর তুমি যদি কাফির হও, তিক্ত ও বিস্বাদ হও, তাহলে তােমার মৃত্যুও কাফির।

৬৭২ হিজরীর জুমাদা আল-উখরার পাঁচ তারিখে সূর্যাস্তের সময় হাকীকত ও মারিফত বর্ণনারত অবস্থায় তিনি ইনতিকাল করেন। ইনতিকালের সময় মওলানার বয়স ছিল ৬৮ বছর তিন মাস।

মওলানার জানাযা বাইরে আনতেই এক কিয়ামত-দৃশ্যের অবতারণা হয়। সকল ধর্মের ও সকল জাতিগােষ্ঠীর লােকই তাতে শরীক ছিল। সবাই কাঁদছিল। ইয়াহুদী ও খ্রিস্টান তাদের স্ব স্ব ধর্মগ্রন্থ (তওরাত ও ইন্‌জীল) পাঠ করছিল।

মুসলমানেরা তাদেরকে বাধা দিচ্ছিল, কিন্তু তারা বিরত হচ্ছিল না। শেষাবধি গােলযোগের আশঙ্কা দেখা দেয়। যখন এ সংবাদ কাউনিয়ার শাসনকর্তা মুঈনুদ্দীন পরওয়ানার নিকট পেীছল তখন তিনি খ্রিস্টান ধর্মযাজক ও পাদরীদের জিজ্ঞেস করেন : (মওলানার জানাযায় শরীক হবার সঙ্গে) তােমাদের কী সম্পর্ক? তারা বলল : আমরা পূর্ববর্তী নবীদের হাকীকত এঁরই বর্ণনার মাধ্যমে বুঝতে পেরেছি এবং কামিল দরবেশদের চলনভঙ্গী তাঁর চলনভঙ্গী থেকেই জেনেছি। যা হােক, ঐ সব লােক জানাযার অনুগমন করে। লােকের ভীড় এত বেশি হয়েছিল যে, মুর্দার খাটিয়া খুব ভােরে মাদরাসা থেকে রওয়ানা হয়েছিল এবং সন্ধ্যার সময় কবরস্থানে গিয়ে পৌছেছিল। রাতের বেলা তাসাওউফ ও ফকীরির এই সুমহান সূর্য লােকচক্ষুর অন্তরালে চলে যায়।

চরিত্র ও বৈশিষ্ট্য

মওলানা শিবলী মরহুম “সওয়ানেহ’-ই-মওলানা রূম” নামক গ্রন্থে বলেন : মওলানা যতদিন পর্যন্ত তাসাওউফের বেস্টনীর মাঝে আসেন নি ততদিন পর্যন্ত তাঁর জীবন ছিল জ্ঞানীসুলভ আঁকজমকের এক আশ্চর্য প্রতিমূর্তি। তার সওয়ারী যখন রাস্তায় বের হত তখন ‘আলিম-উলামা কিংবা ছাত্রই শুধু নয়, আমীর-উমারার একটি দলও তাঁর অনুসরণ করত। আমীর-উমারা ও সুলতানদের দরবারের সঙ্গেও তার সম্পর্ক ছিল। কিন্তু সক (আধ্যাত্মিকতার পথ)-এ প্রবেশ করবার সঙ্গে সঙ্গে তার এ অবস্থার পরিবর্তন ঘটে। পঠন-পাঠন (দৱস ও ভাদরীস), ফতওয়া প্রদান ও জনকল্যাণমূলক কাজের সাথে তাঁর কিছু যােগ ছিল বটে, তবে তা ছিল অতীত জীবনের প্রতীকস্বরূপ। অন্যথায় তিনি সব সময়ই আল্লাহ প্রেম ও তার মা’রিফতের নেশায় ডুবে থাকতেন। রয়াযত ও মুজাহাদা

তাঁর রিয়াযত ও মুজাহাদা ছিল সীমাতিরিক্ত। সিপাহসালার তাঁর সাহচর্যে গটিয়েছেন বছরের পর বছর। তিনি বলেন ঃ আমি কখনােই তাঁকে রাত্রিকালীন পাশাকে দেখিনি। বিছানা কিংবা তাকিয়া (বালিশ) একেবারেই থাকত না। ইচ্ছে চরেই তিনি শয়ন করতেন না। ঘুম আসলে বসে বসেই একটু ঝিমিয়ে নিতেন। কিটি গলে তিনি বলেন : ৬/৭ … » ESS+* * * *

এমন লােক কি করে আরাম করতে পারে- তা সে যে পাশ ফিরেই শয়ন করুক না কেন-যার বিছানা কাটাভরা।

সামা মাহফিলে তাঁর মুরীদদের যখন ঘুম পেত তখন তিনি তাদের খাতিরে দেওয়ালের সঙ্গে হেলান দিয়ে জানুর ওপর মাথা রাখতেন যাতে তার দেখাদেখি অন্যেরা নির্দ্বিধায় কিছুটা শুয়ে নেয়। তারা ঘুমিয়ে পড়তেই তিনি উঠে যেতেন এবং যিকর-আযকার ও তাসবীহ-তাহলীলে মত্ত হয়ে পড়তেন। একটি গলে এরই প্রতি তিনি ইঙ্গিত করেছেন :

همه خفتند و من دل شده را خواب نپرد

همه شب ديده من بر فلك أستاره شمرد خوابم از دیده چنان رفت که هرگز ناید

خواب من زهر فراق تو بنوشید و بمرد

সবাই ঘুমিয়ে পড়েছে, কিন্তু আমি হত হৃদয়ের ঘুম আসেনি। আমার আঁখিযুগল কেবল আসমানের তারকা গুণেই রাত কাটিয়েছে। ঘুম আমার চোখ থেকে এমনভাবেই উধাও হয়েছে যে, আর কখনাে ফিরে আসবে না। কেননা আমার চোখ তােমার বিচ্ছেদ বিষ পান করে মারা গেছে (আর মৃত তাে পুনরায় ফিরে আসতে পারে না)।

অধিকাংশ সময় তিনি সিয়াম পালন করতেন এবং উপর্যুপরি কয়েক দিন পর্যন্ত কিছুই খেতেন না।

সালাতের অবস্থা

সালাতের ওয়াক্ত হতেই তিনি কিবলামুখী দাঁড়িয়ে যেতেন। এ সময় তার চেহারার রং বদলে যেত। সালাতের মধ্যে তিনি নিজেকে হারিয়ে ফেলতেন। সিপাহসালার বলেন : নিজের চোখেই আমি বহুবার দেখেছি যে, এশার আওয়াল ওয়াক্তে তিনি নিয়ত বেঁধেছেন এবং দু’ রাকআত পড়তেই সুবেহ (তাের) হয়ে গেছে। মওলানা তার একটি গলে স্বীয় সালাতের অবস্থার বর্ণনা দিয়েছেন :

چو نماز شام هر کس نهد چراغ و خوانے

منم و خیال بارے غم و نوحه وفنانے چو وضو ز اشك سازم بود أنشب نمازم

در مسجدم بسوزد چو در در سد اذانے عجبا نماز مستان توبگو درست هست آن

که نداند او زمانی نه ششائد او مکانے عجبة دو رکعت ست ایں عجبا چهارم است این

عجبا چه سوره خواندم. چونداشتم زمانے

در حق چگونه کوبم که نه دست ماندوئے دل

دل دوست چوں توبردی بده لے خدا أمانے بخدا خبر نه دارم چو نمازی گزارم

که تمام شد رکوعی که امام شد فلانی

সবাই সন্ধ্যায় সালাত আদায় করেই দস্তরখানা বিছায় এবং প্রদীপ জ্বালায়; কিন্তু আমি তখন অন্য এক বন্ধুর কল্পনায় থাকি, থাকি পেরেশান। তারই বিরহ গাঁথা গাই এবং তারই কাছে ফরিয়াদ জানাই। চোখের পানিতে যখন ওযূ করি তখন আমার সালাতও আগুনে পরিণত হয়; মসজিদেই আমাকে পুড়িয়ে ফেলে যখন সেখানে আযানের আওয়াজ পেীছে। আরো পাগলদের সালাতই অদ্ভুত ধরনের। তােমরাই বল,এটা কি জায়েয? (এমতাবস্থায় যে,) না তারা (সালাতের) ওয়াক্তের খবর রাখে আর না রাখে স্থানের। বিস্ময়ের ব্যাপার, তারা জানে না এ সালাত দু’ রাক’আতের, না চার রাক’আতের? আরাে বিস্ময় এই যে, সালাতের সময় জ্ঞান যখন আমার নেই তখন কি করে বলি, আমি সালাতে কোন্ সূরা পড়েছি। আল্লাহ্র দরজার কিভাবে কড়া নাড়ি, যখন আমার হাতও নেই, হৃদয়ও নেই। হে খােদা! তুমি যখন হৃদয়, হাত সব কিছুই নিয়ে গেছ- তখন আমাকে (অন্তত) নিরাপত্তা দাও। আল্লাহর কসম! আমি যখন সালাত আদায় করি তখন কোন কিছুরই খবর রাখি না। কোন রুকূ’ পুরা হল কিনা, কে ইমামতি করল তাও জানি না।

একবার শীতের দিনে মওলানা সালাতে দাঁড়িয়ে এত বেশি কাঁদেন যে, তাঁর সমস্ত চেহারা ও দাড়ি চোখের পানিতে ভেসে যায় এবং শীতের তীব্রতায় সে পানি জমে বরফে পরিণত হয়। অবশ্য তিনি সেভাবেই সালাতে মশগুল থাকেন। যুহদ ও অল্পে তুষ্টি

| মেযাজের দিক দিয়ে তিনি সর্বোচ্চ মাত্রায় যুহদ-এ অভ্যস্ত এবং অল্পে তুষ্ট ছিলেন। সকল সুলতান ও আমীর-উমারাই নগদ অর্থ-কড়িসহ সর্বপ্রকার উপহার-উপঢৌকন তার কাছে পাঠাতেন। কিন্তু তিনি সে সবের কিছুই নিজের কাছে রাখতেন না। যা কিছু আসত এবং যেভাবে আসত তিনি তা সালাহুদ্দীন যরকুব অথবা চিল্পী হুসামুদ্দীনের নিকট পাঠিয়ে দিতেন। কখনাে এমনও দেখা | গেছে যে, ঘরে এক মুঠো খাবারও নেই, এমতাবস্থায় মওলানার সাহেবযাদা

সুলতান ওয়ালাদের পীড়াপীড়িতে ঐ সমস্ত জিনিস থেকে কিছুটা ঘরে রেখে দিতেন। যেদিন ঘরে খাবার কিছুই থাকত না-সেদিন মওলানা অত্যন্ত খুশি হয়ে বলতেন, “আজ আমাদের ঘরে দরবেশির গন্ধ অনুভূত হচ্ছে।” বদান্যতা ও কুরবানী

দানশীলতা ও বদান্যতার অবস্থা ছিল এই যে, সায়েল (প্রার্থী)-কে কিছু দিতে পারলে দেহে আবা, কুর্তা যা-ই থাকুক না কেন, তাই খুলে দিয়ে দিতেন। পাছে খুলে দিতে দেরী হয় সেজন্য আবার মত কুর্তার সম্মুখ ভাগও সব সময় খােলা রাখতেন। পরার্থপরতা ও অহংশূন্যতা

একবার মুরীদদের সঙ্গে কোথাও যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে সংকীর্ণ একটি গলিপথের ওপর একটি কুকুর শুয়েছিল। ফলে রাস্তা গিয়েছিল আটকে। মওলানা থেমে গেলেন এবং অনেকক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকলেন। বিপরীত দিক দিয়ে এক ব্যক্তি হেঁটে আসছিল। লােকটি কুকুরটাকে রাস্তা থেকে হটিয়ে দেয়। মওলানা এতে মনঃক্ষুন্ন হন এবং বলেন : তুমি ওকে না-হক কষ্ট দিলে।

একবার দু’জন লােক রাস্তার ওপর দাঁড়িয়ে ঝগড়া করছিল এবং একে অপরকে গালি দিচ্ছিল। তাদের ভেতর একজন অপরজনকে বলছিল? অভিশপ্ত। তুমি আমাকে একটা বললে বিনিময়ে আমি দশটা শুনিয়ে দেব। আকস্মিকভাবে মওলানা এদিক হয়ে কোথাও যাচ্ছিলেন। তিনি ঐ লােকটিকে ডেকে বললেন : ভাই। তােমার যা কিছু বলার তা ওকে নয়, বরং আমাকে বল। কেননা তুমি আমাকে হাযারটা বললেও আমি প্রত্যুত্তরে একটিও বলব না। এ কথা শুনে লােক দুটি মওলানার পায়ে পড়ে ক্ষমা চেয়ে নেয় এবং নিজেদের মধ্যে সন্ধি করে। হালাল উপার্জন

আওক “ফি বিভাগ থেকে মাসিক ১৫ দীনার ভাতা নির্ধারিত ছিল। এর দ্বারাই মওলানা জীবিকা নির্বাহ কতেন। বিনা শ্রমে প্রাপ্ত অর্থে জীবিকা নির্বাহ করা তিনি অত্যন্ত অপছন্দ করতেন। সেজন্য তিনি এর বিনিময়ে ফতওয়া লিখতেন। মুরীদদেরকে তাকীদ দিয়ে রেখেছিলেন, “যখনই কেউ ফতওয়া নিয়ে আসে, তখন যে অবস্থায়ই থাকি না কেন, আমাকে অবশ্যই সংবাদ দেবে যাতে এর মাধ্যমে আমি হালাল উপার্জন করতে পারি।”

একবার কেউ বলেছিল, “শায়খ সদরুদ্দীন মাসে হাযার রূপিয়া ভাতা পান, আর আপনি পান কেবল পনের দীনার মাসিক।’ মওলানা জওয়াবে বলেছিলেন : শায়খ-এর খরচের পরিমাণও খুব বেশি। আসলে আমি যে পনের দীনার পাই সেটাও তারই পাওয়া উচিত।

দুনিয়াদারদের সংশ্রব বর্জন।

মওলানা প্রকৃতিগতভাবেই আমীর-উমারা, সুলতান ও শাসকদের ঘৃণা করতেন এবং তাদের সংস্রব এড়িয়ে চলতেন। কেবল সদাচরণের খাতিরেই তিনি তাঁদের সঙ্গে কখনাে কখনাে মিলিত হতেন। একবার এক আমীর মওলানার নিকট এই মর্মে সংবাদ পাঠান, “অত্যধিক কাজের চাপে ফুরসৎ পাই না। তাই হযরতের দরবারে হাযির হবার মওকা জোটে খুবই কম। মেহেরবানী করে আমাকে ক্ষমা করবেন।” মওলানা তাকে বলে পাঠান :

“ক্ষমা প্রার্থনার প্রয়ােজন নেই। আসার চেয়ে না আসলেই বরং আমি বেশি কৃতজ্ঞ থাকি।”

মসনবী ও তার জ্ঞানগত ও সংস্কারমূলক অবস্থান ও পয়গাম মছনবী

| মওলানার অবস্থা থেকে বােঝা যায়, তিনি স্বভাবতই উৎসাহী ও আবেগপ্রবণ ছিলেন। ইশক তথা প্রেম তার প্রকৃতির রন্ধ্রে রন্ধ্রে প্রবেশ করেছিল। জাহির “ইলম ও বুদ্ধিবৃত্তির অনুক্ষণ ধ্যান তাঁর ও প্রেমের এই আগুনকে দাবিয়ে রেখেছিল। শামুস তাবরীযের অগ্নিবৎ ধ্যান তাঁর এ প্রেমের এই আগুনকে দাবিয়ে রেখেছিল। শামুস তাবরীযের অগ্নিবৎ সাহচর্য তাঁর প্রকৃতিকে উস্কে দিয়েছিল এবং প্রশিক্ষণ ও পরিবেশ তাঁর ওপর যে আবরণ ফেলেছিল অত্যন্ত আকস্মিকভাবেই তা বিলীন হয়ে যায়। ফলে তিনি আপাদমস্তক জ্বলন্ত আগ্নেয়গিরিতে পরিণত হন।

شعلها أخر زهر مويم دميد + ازرگ اندیشه ام أنش چکبد

আমার লােমকূপের গােড়া থেকে শেষাবধি অগ্নি-শিখা নির্গত হচ্ছে; আমার চিন্তার শিরা-উপশিরা থেকে আগুন ঝরে পড়ছে। ২। এই মকামে পৌঁছার পর ‘আরিফের প্রতিটি লােমকূপ থেকে আওয়াজ ধবনিত

در جهاں یارب ندیم من کجاست + نخل سينام كليم من كجاست

হে প্রভু-প্রতিপালক! দুনিয়াতে আমার সাথী (বন্ধু) কোথায়? আমি সিনাই পর্বতের খােরমা বৃক্ষ; আমার কলীম (হযরত মূসা) কোথায়?

আর এটাই একমাত্র কারণ যে, অন্তরঙ্গ বন্ধু ও রহস্য-সঙ্গী ব্যতিরেকে তার পক্ষে জীবন ধারণ করা ছিল অসম্ভব। শামুস তাবরীযের পর যতদিন পর্যন্ত না তিনি সালাহুদ্দীন যরকূব এবং সালাহুদ্দীন যরকূবের পর যতদিন পর্যন্ত হুসামুদ্দীন চিল্পীকে পেয়েছেন তাঁর অশান্ত ও অস্থির চিত্ত শান্ত হয়নি। ১৯৭১ ৩. ৮ “মােমের পক্ষে একাকী ছটফট করা সহজ নয়।” | এই জ্বলন্ত অগ্নিই তাঁকে ক্রমান্বয়ে সামা’র দিকে টেনে নিয়ে যেত এবং তিনি এ থেকে শক্তি ও খােরাক সগ্রহ করতেন। অনন্তর তিনি বলেন :

پس غذایی عاشقان أمد سماع + که از وباشد خیال اجتماع قونی گیرد خیالات ضمير + بلکه صورت گردد از بانک صفير آتش عشق از نواها گرد نیز به آنچنانکه آتش أن جون ریز

‘আশিকের খাদ্যই হচ্ছে সামা’র মাহফিল; কেননা এর দ্বারাই একাগ্রতা ও মানসিক প্রশান্তি আসে। অন্তরের কল্পনা একটা উল্লেখযােগ্য পরিমাণ শক্তি লাভ করে, বরং বাঁশীর আওয়াজে তার একটা ব্যবস্থা কিংবা সুরাহা হয়ে যায়। প্রেমের আগুন শব্দ দ্বারা আরাে বেগবান হয়েছে, যেরূপ এই অগ্নিকুণ্ডে কয়লা নিক্ষেপকারীর আগুনের অবস্থা।

এই তাপ ও জ্বালাই তাকে আরাে উস্কে দিয়েছে এবং চুপচাপ থাকাকে তার পক্ষে অসম্ভব করে তুলেছে। তাঁর ভাষায় :

جوش نطق از دل نشاں دو ستیست + بستگی نطق از پے الفتی است دل که دلبر دید کے ماند ترش + بلبل گل دیده کے ماند خمش

হৃদয় থেকে উৎসারিত শব্দের বন্যা উছলে পড়া মুহব্বতের আলামত; আর শব্দ আটকে যাওয়া সম্পর্কহীনতা ও প্রেমশূন্যতার কারণ। যে হৃদয় প্রেমাস্পদকে দেখতে পেয়েছে সে কি করে নিষ্প্রাণ ও স্বাদহীন। থাকতে পারে; আর যে বুলবুল ফুল দেখেছে সে কি করে না গেয়ে থাকতে পারে।

এই বাদ্যযন্ত্র থেকে যে গীত নির্গত হল তার সংকলনই হ’ল মছনবী। এ তার ধ্যান-ধারণা ও অবস্থা, ঘটনা ও প্রতিক্রিয়া,পর্যবেক্ষণ ও অভিজ্ঞতার দর্পণ। এটা গায়বের ব্যথা ও জ্বালা,জোশ ও মত্ততা এবং ঈমান ও ইয়াকীন দ্বারা পূর্ণ। মছনবীর বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয়তা ও নজীরবিহীন প্রভাব সৃষ্টির এটাই আসল কারণ।

هے رگ ساز میں رواصاحب ساز کا لہو

বাদ্যযন্ত্রের প্রতিটি শিরা-উপশিরায় এর নির্মাতার রক্ত প্রবাহিত। বুদ্ধিবৃত্তি ও জাহির পরস্তীর সমালােচনা

মওলানার শিক্ষা ও এর বিকাশ ঘটেছিল সর্বাংশেই আশ’আরীদের জ্ঞানগত পরিবেশ ও পরিমণ্ডলে। তিনি নিজেও একজন সফল শিক্ষক ও যুক্তিবাগীশ ‘আলিম ছিলেন। আল্লাহর অনুগ্রহ যখন তাকে মা’রিফত (পরিচিতি) ও অবহিতির স্তর পর্যন্ত পৌছাল এবং বাণী থেকে অবস্থা, খবর থেকে নজর, শব্দ থেকে অর্থ এবং পরিভাষা ও সংজ্ঞার শাব্দিক ইন্দ্রজাল থেকে হয়ে যখন তিনি মূল সত্যে গিয়ে উপনীত হলেন, তখনই তিনি দর্শন ও ইলমে কালামের দুর্বলতা ও যুক্তি-প্রমাণ ও আনুমানিক সিদ্ধান্তের ভ্রান্তি পরিমাপ করতে সক্ষম হলেন। দার্শনিক, মুতাকাল্লিম ও যুক্তি-বাগীশদের অসহায়ত্ব ও মূল সত্য সম্পর্কে অজ্ঞতার হাকীকত তার সম্মুখে উদ্ভাসিত হয়ে উঠল। যেহেতু এ সবের প্রতিটি অলি-গলি সম্পর্কে তিনি অবহিত ছিলেন সেজন্য তিনি যা বলতেন তা তাঁর ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা ও পর্যবেক্ষণের ভিত্তিতেই হ’ত এবং এর বাস্তবতাও কেউ অস্বীকার করতে পারত না।

এ যুগে দর্শন ও বুদ্ধিবৃত্তির উৎস হিসাবে সর্বাধিক জোর দেওয়া হত বাহ্য ইন্দ্রিয়ের উপর। বাহ্য-ইন্দ্রিয়কেই জ্ঞান লাভ ও নিশ্চিত বিশ্বাস উৎপাদনের সবচেয়ে বিশুদ্ধ ও নির্ভরযােগ্য মাধ্যম বলে মনে করা হত। আর যে সব বস্তু এর আওতায় আসত না অর্থাৎ বুদ্ধির অগম্য ও ইন্দ্রিয়াতীত বিষয়বস্তুকে অস্বীকার করবার প্রবণতা বেড়ে চলেছিল। মু’তাযিলাগণ এই ইন্দ্রিয়ানুভূতি পূজার সবচেয়ে বড় প্রবক্তা ছিল। এই ইন্দ্রিয়ানুভূতি পূজা ঈমান বি’ল-গায়ৰ তথা অদৃশ্যে বিশ্বাস স্থাপনকে খুবই ক্ষতিগ্রস্ত করেছিল এবং ইসলামী শরীয়ত ও আল্লাহ কর্তৃক অবতীর্ণ ওয়াহীর পেশকৃত হাকীকতের প্রতি এক ধরনের অনাস্থার ভাব সৃষ্টি করে দিয়েছিল। মওলানা এই পঞ্চেন্দ্রিয় পূজা এবং এর তুখােড় প্রবক্তাদের সমালােচনা করতে গিয়ে বলেন :

چشم حس راهست مذهب اعتزال + دیده عقل است سنی در وصال

سخره حس اند اهل اعتزال + خویش راستی نمایند از ضلال هرکه در حس ماندا ومعتزلی است + گرچه گوید سنیم از خامی است هرکه بیرون شد زحسن ستی ویست + اهل بينش اهل عقل خویش بیست

জ্ঞান-বুদ্ধির চক্ষু সুন্নত ওয়াল-জামা’আতের সঙ্গে সম্পৃক্ত। মু’তাযিলীগণ ইন্দ্রিয়পূজার খেলনামাত্র; বিভ্রান্তি ও গােমরাহীর কারণে তারা নিজেদের সুন্নী হিসেবে দেখিয়ে থাকে। যে কেউই ইন্দ্রিয়-পূজায় অতিবাহিত করল, সে মু’তাযিলী অর্থাৎ সত্যানুসারীদের দলবহির্ভূত; যদি সে সুন্নী হবার দাবি করে, তবে এ তার দুর্বলতা। যে ইন্দ্রিয় পূজা থেকে বেরিয়ে এল সে সুন্নী ; জ্ঞানী ব্যক্তিরা কেবল তাদের বুদ্ধির ওপরই দাঁড়িয়ে থাকে।

তিনি স্থানে স্থানে এটা প্রমাণ করতে চেষ্টা করেছেন যে, ঐসব বাহেন্দ্রিয় ছাড়াও মানুষকে কিছু প্রচ্ছন্ন ইন্দ্রিয় দান করা হয়েছে। আর এই প্রচ্ছন্ন ইন্দ্রিয় বাহেন্দ্রিয়ের তুলনায় অনেক বেশী বিস্তৃত ও গভীর। মওলানা বলেন :

پنج حسب هست جز ایں بنج حس + آن چوزر سرخ رایں حسها چومس اندر ان بازار کا هل محشر اند + حس مس را چوں حس زرکے خرند حس ابداں قوت ظلمت می خورد + حس جان از آفتابی می چرد

ঐ পাঁচটি ইন্দ্রিয় (চক্ষু, কর্ণ, নাসিকা, জিহ্বা ও ত্বক) ছাড়াও আরও পাঁচটি ইন্দ্রিয় রয়েছে, যেগুলাে স্বর্ণের ন্যায় লাল আর এই বাহেন্দ্রিয় আমার মতই (মূল্যহীন)। জনসমাবেশে পরিপূর্ণ এই বাজারে তামার ন্যায় মূল্যহীন ইন্দ্রিয়কে স্বর্ণের ন্যায় মূল্যবান ইন্দ্রিয়ের বিনিময়ে ক্রয় করবে? শরীরের ইন্দ্রিয়াতৃতির খােরাক হ’ল অন্ধকার; আর হৃদয়ের মাঝে যে অনুভূতি বিরাজমান তার খােরাক সূর্য-কিরণ।

তাঁর মতে কোন বস্তু অস্বীকার কিংবা প্রত্যাখ্যানের জন্য এতটুকু প্রমাণ যথেষ্ট নয় যে, তা দেখা যায় না কিংবা তা ইন্দ্রিয় অনুভূতি অথবা উপলব্ধিতে ধরা পড়ে না। তার মতে বাতেন (প্রচ্ছন্ন বস্তু কিংবা বিষয়) জাহির (বাহ্যিক কিংৰা দৃশ্যমান বস্তু বা বিষয়)-এর পেছনে লুক্কায়িত এবং ঠিক সেইভাবে যেভাবে ঔষধের

অন্তরালে উপকারিতা ও কল্যাণ লুকিয়ে থাকে। যারা এই অদেখা বা প্রচ্ছন্ন বস্তু অস্বীকার করে তাদের সম্পর্কে তিনি বলেন :

حجت منکر همی آمد که من به غیر ازیں ظاهر نمی بینم وطن هیچ نندیشد که هر جا ظاهر است + آن زحکمت هائے پنہاں فجرست

خود باطنیت + همچو نفع اندر دواها مضمریست فانده هر ظاهر

(অদৃশ্য বস্তুর) অস্বীকারকারীদের যুক্তি হ’ল“আমি এই দৃশ্যমান বস্তুজগত ছাড়া আর কোন জগতই দেখছি না।” তারা এটা চিন্তা করে দেখে না যে, প্রতিটি দৃশ্যমান বস্তু একটি প্রচ্ছন্ন মৌলিক সত্যের হিকমত থেকেই প্রকাশ পেয়েছে। প্রতিটি দৃশ্যমান বস্তুর কল্যাণ ও উপকারিতা তাে একটি প্রচ্ছন্ন বিষয়; যেমন ঔষধ দৃশ্যমান বস্তু, কিন্তু তার অন্তর্বর্তী উপকারিতা প্রচ্ছন্ন।

তার বক্তব্য এই যে, অস্বীকারকারীরা নিজেদের এই বাহ্যদর্শিতা ও সংকীর্ণ দৃষ্টিভঙ্গীজনিত অভ্যাসের কারণে ঐসব বাতেনী হাকীকতের দর্শন থেকে বঞ্চিত এবং আসল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হতে মাহরাম।

چونکه ظاهر هاگر فتند احمقان + آي دقائق شد ازیشان پس نهان لاجرم محجوب گشتند از غرض + که دقیقه فوت شد در مفترض

বেওকুফেরা যখন কেবল প্রকাশ্য ও দৃশ্যমান বস্তুকে গ্রহণ করল তখন সূক্ষ্মাতিসূক্ষ্ম বিষয়বস্তুর হাকীকত তাদের দৃষ্টির অন্তরালে চলে গেল। এজন্যেই অসহায় এসব লােক উদ্দেশ্য ও লক্ষ্যভ্রষ্ট হ’ল; একটি কাল্পনিক ও কৃত্রিম বন্ধুর জন্য তাদের হাকীকত তথা মূল সত্যই হারিয়ে গেল।

পঞ্চেন্দ্রিয় থেকে অগ্রসর হয়ে তিনি যুক্তি ও জ্ঞান-বুদ্ধির ওপর সমালােচনার ছুরি চালিয়েছেন এই বলে যে, ‘আলম-ই-গায়ব বা অদৃশ্য জগতের হাকীকত ও আম্বিয়া ‘আলায়হিমু’স-সালামের ইলম ও মা’রিফতের ব্যাপারে যুক্তি ও জ্ঞান-বুদ্ধি সংকীর্ণ ও সীমাবদ্ধ। তার নিকট অনুমানের কোন ভিত্তি নেই, এ জগতের কোন অভিজ্ঞতাও তার নেই। যে সমুদ্রের লবণাক্ত পানির অধিবাসী সে সুপেয় মিষ্টি পানির স্বাদ কি করে বুঝবে?

اسے که اندر چشمه شور است جات تو چه دانی شط وجيحون وفرات

ওহে। লবণাক্ত ঝর্ণার মাঝে তােমার অধিবাস, জীহুন ও ফোরাতের মত সুপেয় নদীর পানির স্বাদ তুমি কী করে বুঝবে।

তিনি সেই যুক্তি ও জ্ঞান-বুদ্ধিকে যা পঞ্চ ইন্দ্রিয়ের সূচনাপর্বের অধীন, আংশিক জ্ঞান নামে স্মরণ করে থাকেন। তাঁর মতে জল্পনা-কল্পনা ও সংশয় তার পরিণাম এবং অন্ধকার জগত তার স্বদেশভূমি। এই আংশিক জ্ঞানের চেয়ে পাগলামিও ভাল।

عقل جزوی آفتش وهم ست وظن … دست در دیوانگی باید زدن

আংশিক জ্ঞানের বিপদ হ’ল অনুমান ও ধারণা ; কেননা অন্ধকারের মাঝেই তার অধিবাস। আংশিক বুদ্ধি বুদ্ধিকেই দুর্নামের ভাগী করেছে ; দুনিয়ার মতলব মানুষকে। ব্যর্থতার শিকারে পরিণত করেছে। এই জ্ঞান ও বুদ্ধি থেকে অমনোেযােগী হওয়াই ভাল । এর চেয়ে বরং পাগলামি আরও ভাল-অর্থাৎ এরূপ জ্ঞান-বুদ্ধি অপেক্ষা অজ্ঞানতার মাঝে বাস করাও ভাল। ৪

তিনি বলেনঃ আমি স্বয়ং এই দূরদর্শী জ্ঞান-বুদ্ধির অভিজ্ঞতা লাভ করেছি, অতঃপর আমি এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছি।

از مردم عقل دور اندیش را بعد ازیں دیوانه سازم خویش را

এই দূরদর্শী বিদ্যা-বুদ্ধিকে আমি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখেছি এবং এই অভিজ্ঞতা লাভের পরই আমি নিজেকে পাগল বানিয়েছি।

অতঃপর মওলানা সােজা, সরল ও সহজবােধ্য ভাষায় বলেন, যদি ‘আকল (জ্ঞান ও যুক্তি-বুদ্ধি) দীনের হাকীকত ও মারিফত বুঝবার জন্য যথেষ্ট হত তাহলে তার্কিক, দার্শনিক, পণ্ডিত ও মুতাকাল্লিমগণই সবচেয়ে বেশী আল্লাহওয়ালা (আরিফ) এবং ধর্মের সূক্ষ্ম রহস্য সম্পর্কে ওয়াকিফহাল হতেন।

اندریں بحث از خردره بین بدی فخر رازی راز دار دین بدے

নারীর শরীরে সুখ দুঃখ এর লক্ষণ বা চিহ্ন

নারীর শরীরে সুখ দুঃখ এর লক্ষণ বা চিহ্ন

নারীদের সুখ দুঃখের লক্ষণ বর্ণনা

কি কি লক্ষণ পুরুষের দেহে থাকলে সে সুখী হয় আর কি কি লক্ষণ পুরুষের দেহে থাকলে সে দুঃখ পায়, এর আগে মহাদেব সে বিষয়ে বর্ননা করলেন।

এবারে নারীজাতির দেহে কি কি চিহ্ন থাকলে তারা সুখী হয় আর কি চিহ্নের ফলে তারা দুঃখ পায়, মহাদেব একে একে তার বর্ণনা করতে লাগলেন।

যে নারীর যােনি কূর্মপৃষ্ঠের মত ( কচ্ছপের পিঠের মত) অথবা গজ স্কন্ধের (হাতীর কঁাধের) মত, সে যাবজ্জীবন পরম সুখে দিন কাটায়।।

কচ্ছপের পিঠের সঙ্গে তুলনা করা হয়েছে তার অর্থ—যদি ভগদেশ উচ্চ ও পুষ্ট হয় তাহলে তা দৃঢ়সংবদ্ধ ও উচু অর্থাৎ কচ্ছপের পিঠের মত দেখাবে নিশ্চয়ই। হাতীর কাধ আর কচ্ছপের পিঠ অনেকটা একই রকম দেখতে হয়।

এই ধরনের নারীরা পতিপরায়ণা হয় এবং দাম্পত্যজীবনে তারা সুখী হয়, ইহাই শাস্ত্রবচন।।

মুত্রজঃ কুৰ্ম্ম পৃষ্ঠাভ করিস্কন্ধসমস্তথা।

স সুখ ভাগিনী যস্যাঃ রতিশাস্ত্রে প্রকীর্তিতম্ ।।

নারীর কক্ষ প্রদেশ (অর্থাৎ তলপেট থেকে উরুর উপরিভাগ পর্যন্ত সম্পুর্ন অংশ) যদি অশ্বপাত মত আকৃতিবিশিষ্ট ( অনেকটা পানের পাতার মত ) ) হয় এবং তাতে উধৰ লােম (খাঁচা খোঁচা লােম ) পুর্ন হয়ে থাকে তবে সে নারী নিশ্চয়ই পরম সুখের অধিকারিনী হয়, এতে সন্দেহ নাই।

 সুখী অর্থাৎ মনীষী ব্যক্তিগণ সকলে রতিশা-সম্মজ এই বিধান সমর্থন করে থাকেন।

কক্ষোংশঙ্খদলকার উদ্ধ লােমসমস্বিতা।।

সুধীভিঃ কথিত যস্যাঃ শুভা সা সুখভাগিনী৷৷

যে নারীর জঙক্ষা দুটি সুন্দরভাবে গােলাকার, মসৃণ, সােজা আর লেমশূন্য হয়, আর সেই সঙ্গে দুটি জানু সমান হয় অর্থাৎ ছোট বড় বা পৃথক না হয়, সেই নারীর পরম সুখে দিন কাটতে থাকে।

সুবৃত্তে সরলে চৈব জঘে লোমবিবজিতে।। | সমঞ্চ জানুযুগলং সা ভবে-সুভাগিনী।

এবারে পায়ের তলের কয়েকটি চিহ্ন সম্পর্কে বর্ণনা করা হয়েছে। যে নারীর পায়ের তল পদ্মের মত অর্থাৎ কোমল, মসৃণ, গােলগাল এবং সুদর্শন, সে সুখের অধিকারিনী হয়। পায়ের সঙ্গে পদ্মের তুলনা রতিশাস্ত্রেই করা হয়েছে- অবশ্য হাতের সঙ্গে পদ্মের তুলনা অন্যান্য শাস্ত্রে করা হয়েছে।

পায়ের তল ভাগে যদি বস্ত্রচিহ্ন হলচিহ্ন বা পদ্মচিহ্ন থাকে তবে তা খুবই শুভ। এরূপ চিহ্নবিশিষ্ট নারীকে উচ্চস্তরের নারী বলে জানতে হবে। নীচকুলে তাদের জন্ম হলেও তারা পরম সুখে দিন কাটাবে—এ বিষয়ে সন্দেহমাত্র নেই। সে নারী রাজপত্নী হবার উপমুক্ত।

বজ্ৰাজ-হল চিহ্নঞ্চ মস্যাঃ পাদতলে স্থিত।

রাজপত্নী তু সা জ্ঞেয়া রাজভােগ-প্রদায়কম্ ।।

যে নারীর দাতগুলি চক্চকে সুন্দর সাজান, দাতের মধ্যে মধ্যে ফাক না থাকে অর্থাৎ দতগুলি ঠিক কুন্দফুলের মত দেখায়, যার কণ্ঠের স্বর সুমিষ্ট (অর্থাত ঘ্যান ঘ্যানে নাকি সুর কিংবা কর্কশ স্বর যার কণ্ঠে বের হয় না।

)-ঋণ্ঠের স্বর ঠিক বাশীর ধনির মত মিষ্ট ও মনােহর, সে নারী সুথভাগিনী। হয়ে থাকে।

রতিশাস্ত্রে আরও লক্ষণ বর্ণনা করেছেন মহাদেব। নারী বদনমন্ডোল বেশি লম্বাটে, চোয়াড়ে বা গালভাঙা এগুলি ভাল চিহ্ন নয়, আবার ঠিক চাদের মত গোলাকারও ভাল নয় (যদিও কবিরা চন্দ্রমুখী বলে নারীর উপমা দেন, কিন্তু রতিশাশ্ত্রমতে তা সুলক্ষণ নয়)। যে নারীর বদনমগুল ঠিক বর্তুলাকার, এটি খুব ভাল লক্ষণ।।

বর্তুলাকার মােটামুটি গােল তবে একটু চাপা। অধর ওই নারীর বিশ্বের মত টকটকে লাল হওয়া খুব ভাল রতিশাস্ত্র মতে ।।

নারীর দুটি নাকের ছিদ্র সমান হওয়া ভাল লক্ষণ—ছােট বড় হওয়া ভাল লক্ষণ নয়।

উপরে বর্ণিত সমস্ত লক্ষণ যে নারীর দেহে থাকে, সে পরম সুখে দিন কাটায়। শাস্ত্রোক্ত ভাষায় :

কুন্দপুষ্পসমা দন্তাঃ স্বরেণ বংশিকাসমা।

মুখং হি বত্ত লং চৈব অধরো বিম্ব সন্নিভৌ।।

তথা সমপূৰ্য নাসা ভবেদ বৈ সুখ ভাগিনী ।

যদি কোনও নারীর চক্ষুপল্লবের উপরে গৌরবর্ণ (সাদা) রেখা দেখা যায় তবে সে নারী দুঃখভাগিনী হয়ে থাকে, এতে কোনও সংশয় নেই।

গৌরবর্ণা চ যা রেখা যদি স্যাৎ নেত্রসংস্থিত।।

সা নারী দুঃখভাগিনী নাত্ৰ কাৰ্য্য বিচারণা।

যে নারীর দুটি চোখ নীল উৎপলের মত (অর্থাৎ নীল রঙের পদ্মের মত) বিস্তৃত, এবং তার দুটি প্রান্ত ক্রমশঃ সরু হয়ে গেছে, সে নারী যাবজ্জীবন সুখভােগ করে। পদ্মের মত চোখ অর্থাৎ টানা টানা চোখ যা খুললেও সম্পূর্ণ খােলে না—অনেকটা যাকে হরিণীনয়না বলে শাস্ত্রে বর্ণিত হয়েছে এরূপ চোখ |

এরুপ চোখ দুটি নাকের দু পাশের সঙ্গে সংলগ্ন হবে এবং টানা টানা হওয়ায় যেন আকর্ণ বিস্তৃত বলে মনে হবে।

এমনি সুন্দর চোখের অধিকারিণী নারী প্রচুর বিদ্যা অর্জন করে এবং পরম সুখে দিন কাটায়।

নীলােৎপলনিভঃ চক্ষুনসালগ্নং সলকম ।

পৃথুলে বাজেনিভে তাং বিদ্যা সুখভাগিনীম।

যে নারীর চুল গুলি আপনা থেকেই তেল-ডেজানাে চুলের যত মসৃণ, চিক্কণ ও কোমল থাকে – অর্থাৎ তেলে না ভেজালেও তৈলাক্তের মত দেখায় এবং সেই চুলগুলি নীলবর্ণ ও কুঞ্চিত থাকে, সে রমণী চিরসুখ-ভাগিনী হয়- সেই নারীকে সৰ নারীদের মধ্যে অগ্রগণ্যা বলা হয়ে থাকে। শাস্ত্রে তাকে রমণীশ্রেষ্ঠা বলে বর্ণনা করা হয়েছে।

স্নিগ্ধা নীলা মূদৰে যুদ্ধ জোঃ কুঞ্চিতাস্তথা।।

ধ্রুবং সা রমণীশ্রেষ্ঠ চিরং সুখস্য ভাগিনী।

হাটবার সময় যে নারীর দুটি পায়ের কনিষ্ঠা আর অনামিকা এই দুটি আঙুল ভূমি স্পর্শ করে না, সেই নারীকে কুলটা কলে জানা উচিত। সে নারী সারা জীবন ধরে নানা দুঃখ ভােগ করে থাকে।

কনিষ্ঠিকা গতো যস্যাঃ অথবানামিকাঙ্গ লিঃ।।

ন শতি ধরাং সৈব কুলটা দুঃ ভাগিনী।।

যদি কোনও নারীর দুটি চোখ কেকরা অর্থাৎ ট্যারা হয়, সে নারীর স্বভাৰ প্রচণ্ড অর্থাৎ তার কণ্ঠস্বর ব্যবহার ইত্যাদি তীব্র হয়ে থাকে। উগ্রভাবে সে যেখানে সেখানে ঘুরে বেড়ায় এবং নানা লােকের নিন্দা ভাগিনী হয়।।

যদি কোনও নারীর গলা ছোট এবং স্থুল হয় তবে সে আজীবন মনুঃখ ভােগ করে জনসমাজে ঘুরে বেড়ায়। গলা স্কুল অর্থে ছোট এবং মােটা ঘার বিশিষ্ট গলা বােঝান হয়েছে। শাস্ত্রোক্ত ভাষায় :

বৃহৎ রতিশাস্ত্র নয়নে কেকরে যস্যাঃ সা প্রচণ্ডস্বভাবিক।

স্থূলগণ্ডাঃ চ যা নারী সা হি জীবনদুঃখিনী। 

যদি নারী হাসলে তার গালে কৃপ পড়ে অর্থাৎ টোল পড়ে তবে এটি অত্যন্ত কুলক্ষণ বলে জানতে হবে। টোল ৰা কুপ বলতে এখানে সামান্য খাঁজ নয়, গােলাকার গভীর গর্তকে কূপ বলা হয়ে থাকে।

এই শ্রেণীর নারীরা নিশ্চয়ই ব্যাভিচারিণী হয়। তারা যত দিন বেঁচে থাকে মহাকষ্টে দিন কাটায়।।

হাসতে গণ্ডয়ােশ্চৈব সীতে কূপে ভবিষ্যত।

কুলটা সা ভবেন্নারী আজন্ম-দুঃখ-ভাগিনী।

নারীর হাতে অর্থাৎ করতলে কনিষ্ঠার নিচে থেকে তর্জনীর দিকে যে রেখাটি যায় অর্থাৎ যাকে রতিশাস্ত্র অনুযায়ী আয়ুরেখা বা জ্যোতিষ শাস্ত্রে হৃদয়রেখা বলে। এই রেখা যদি কোন জায়গায় কাটা না থাকে অর্থাৎ ছিন্ন হয়ে না যায় তাহলে সে ঐশ্বর্য্যে পূর্ণ হয়ে পরম সুখে দিন কাটায়। জীবনে সে নারীকে কখনও দুঃখ ভােগ করতে হয় না। এটাই শাস্ত্রের কথা।

কনিষ্ঠাত্তৰ্জ নীং যাবৎ রেখা ভবতি চাক্ষতা।

সা সুখী সুখভাগিনী সর্বৈশ্বৰ্য্য-সমন্বিত৷৷৷

এবারে মহাদেব তার রতিশাস্ত্রে নারীর এমন একটি লক্ষণ বর্ণনা করলেন যা অত্যন্ত খারাপ লক্ষণ। এরূপ লক্ষণ যদিও খুব বেশি দেখা যায় না, তবু যে সব নারীর দেহে এই চিহ্ন দেখা যায় তাদের দুঃখকষ্টের শেষ থাকে না।

যদি কোন নারীর একটি কান ছােট অন্যটি বড় হয় অথাৎ দুটি কান সমান হয়ে ছােট বড় হয় আর তার স্তনদ্বয়ে লােম জন্মে, সেই নারী যতদিন বেঁচে থাকে, ততদিন তাকে মহাক্লেশে দিন কাটাতে হয়। চিরদিন তাকে চোখের জলে ভাসতে হয়।

  আকৃতির রেখা থাকে সে

কারী সন্তানের জননী | রাজমহিষী ( রাজার স্ত্রী) শত হয় এবং রাজপদ প্রাপ্ত

বৃহৎ রতিশাস্ত্র

বিষমৌ শ্রবণােস্যাঃ স্তনো রােমসমন্বিতে।

জীবন্তী জীবনং দেবি তস্যাঃ ক্লেশায় কেবলম।

যে নারীর করতলে মীনরেখা বা মাছের আকৃতির রেখা থাকে সুভাগা, স্বস্তিকচিহ্ন থাকলে কুলের ঘশ বৃদ্ধিকারী সন্তানের জননী হয়। যার হাতে পদ্মচিহ্ন থাকে সেই নারী রাজমহিষী হয়। তার গর্ভে যে ছেলে হয় সেও বিখ্যাত হয় এবং রাজপদ প্রাপ্ত হয়ে থাকে।

যে নারীর হাতে প্রকার বা তােরণের চিহ্ন থাকে সে যদি খুব গরীবও হয় এমন কি দাসকুলে জন্ম নিলেও সে পরম সৌভাগ্য লাভ করবে। রাজরাণীর মত ধনীর ঘরে তার বিবাহ হবে এবং সে রাজরাণী পর্যন্ত হতে পার।।

মৎস্যেন সুভগা নারী স্বস্তিকেন চ সুপ্রজা।

পদ্মেন ভূপতেঃ পত্নী জনয়েৎ ভূপতিংসুতং ।

প্রাকারতােরণং রেখা যস্যাঃ পাণিতলে ভবেৎ।

অপি দাসকুলে জাতা: রাত্বিমধিগচ্ছতি ॥

যে নারীর হাতে ত্রিশূল, খঙ্গ, শক্তি বা দুন্দুভির রেখা থাকে সেই নারী পৃথিবীর মধ্যে কীর্তিশালিনী হয়। নারীর হাতে অঙ্কুশকুল মাছের চিহ্ন থাকলে সেই নারীর পতি দীর্ঘদিন জীবিত থাকে। সে নিজেও বহু সন্তানের জননী হয়ে সুখে দিন কাটায়।

ত্রিশূলাসি গদাশক্তি দুভ্যাকৃতিরেখয়া।।

নিতম্বিনী কীর্তিমতী সা নারী পৃথিবীতলে৷

অঙ্কুশং কুণ্ডলং যানং যস্যা পাণিতলে ভবেৎ।

দীর্ঘায়ুষং পতিং প্রাপ্য পুত্রবৃদ্ধি ভবেৎ ধ্রুবং ৷৷

যে নারীর হাতে বজ্র আর প্রাসাদের রেখা থাকে সে নারী তীর্থকর পুত্র পায় অর্থাৎ তার পুত্র তাকে বহু তীর্থ ভ্রমণ করায়।

স বজ। খে। এতে এক রৎ (ভং।।

দীপা। গল্পী । শকটন। গণ ৰা।।।

যে নারীর পায়ের নীচে বা চরণতলে লম্ব বিস্কৃত রেখা থাকে সে রাজার স্ত্রী হয়ে থাকে। যে নারীর পায়ের গড়ন স্নেহযুক্ত অর্থাৎ  চাকচিক্য শালী, মনোহর, উন্নত ও তাম্রবর্ন নখযুক্ত হয় আর দুটি পায়ের তলে মীন, অঙ্কুশ, রক্ত, প্রভৃতি চিহ্ন বিদ্যমান থাকে, সেই নারী কল্যাণকারিণী হয়। সে পরিবারের। সকলের সুখ বৃদ্ধি করে এবং নিজেও সুখী হয়।

হস্যঃ পদতলে রেখা সা ভবেৎ ক্ষিতিপাঙ্গনা।

তামনখো মিন্নতো নাৰ্য্য চরণেী শুভে।।

মৎস্য অধুঃ শব্দচিহ্নেী চক্রলাঙ্গল লক্ষিতে।

যে নারীর অঙ্গুলি খুব দীর্ঘ হয় সে কুলটা হয়ে থাকে।যে নারীর পায়ের আঙ্গুল গুলি রুশ বা সরু সরু,সে নারী অত্যন্ত ধনহীনা বা গরীব হয়ে থাকে। যে নারীর পায়ের আঙ্গুলগুলি ছোট ছোট সে বেশিদিন জীবিত থাকে না। তাকে অল্পদিনের মধ্যে ইহলীলা শেষ করতে হয়। আর যে নারীর পায়ের আঙ্গুলগুলি কুটিল বা আকা বাকা ও মােটা গাটযুক, সে ভগ্ন অবস্থায় সারা জীবন অতিবাহিত করে। শাস্ত্রের ভাষায়-~~~

দীর্ঘাঙ্গুলিভিঃ কুলটা কৃশাভিরতিনিধনা।

হ্রস্বায়ুষ্যা চ হ্রস্বাভি গ্লাভিভুগ্নবর্তিনী।

যে নারীর নিতম্ব বেশ উন্নত ও মৃগীর মত চতুরস্র সেই নারী কল্যাণকারিণী হয়ে থাকে।

যে নারীর নিতম্ব উন্নত, মাংসল ও বিস্তৃত হয় সেই নারী পরম সুখে কালাতিপাত করে।

পেতচরর 

 পেযে নারীর নিতম্ব সরু এবং মাংসল নয় সে দুঃখে দিন কাটায় সন্দেহ নেই।

সমুন্নতো নিত পুশ তুরনো মজশা ।

নিতবিখো নাতীণা উতে। মাংস ধু:

মহাজোগায় লাগেজ তাহেশখায়।

যে নারীর  নাভি বেশ প্রশস্ত  গভীর ও দক্ষিনাবর্তবিশিষ্ট  অর্থাৎ দান দিকে পাক দিয়েছে সে কল্যাণকারিনী ও শুভফলদায়িনী  হয়ে থাকে।

যে নারীর পেট অত্যন্ত বৃহৎ সে নিঃসন্তান ও দুর্ভাগিনী হয়।

যে নারীর জঠর লম্বিত অর্থাৎ লম্বা হয়ে নিছে আসে, অল্প দিনের মধ্যে তার শশুর ও দেবরের প্রান বিনাশ হয়ে থাকে।

তিনি প্রশস্ত জঙিণাবকি ।

শিলাসী নারী নিরল তাপ।।

কাজ করা শুৰি শ্বশুরালি দেবর। |

যে নারীর পেট কুন্তাকৃতি  অর্থাৎ পেট কুন্ত এর মত সে দরিদ্র হয়।

যে নারীর উদর কুমড়োর মত সে অসৎ বংশীয় হয়।

 

যে নারীর অঙ্গ মৃদু নরম দেহের চর্ম,মুখ কোমল মনােহর, চক্ষু মৃগচক্ষুর মত অর্থাৎ হরিপনয়না, জাদু, পেট মৃগের জানু ও পেটের মত সেই নারী যদি গরীবও হয়, এমন কি দাসীর গর্ভেও যদি তার জন্ম হয় তবু সে ধনী হয়—সে রাজার পত্নী অর্থাৎ রাজমহিষী পর্যন্ত হতে পারে।

মুগনেত্রা মৃঙ্গী চ মৃগজানু মৃগােদরী।

দানীজাতা চ সা কন্যা রাজানং পতিমাপ্লয়াৎ।।।

যে নারীর দুটি বাহু রেখাবিশিষ্ট অর্থাৎ বহু শিরাযুক্ত, যে নারীর মুখে অনেক তিল থাকে, অধর ও ওষ্ঠ সরল অর্থাৎ দুটি ঠোঁটই বাকা না হয়ে সােজা খাের মত লম্বা, সে নারীর পতির মৃত্যু হয়—অর্থাৎ সে বিধবা হয়।

যস্য। রেখাথিতে বাহু মুখে চ তিলকং ধ্রুবং।

সরলে অধরেষ্টো চ ক্ষিপ্রং বিধবালক্ষণম্।।

যে নারীর গ্রীবাদেশে অর্থাৎ গলায় তিনটি রেখা দেখা যায়, সে চির সুখ ভোগ করে। এই লক্ষণটি খুবই ভাল সন্দেহ নাই।

যে নারীর গ্রীবার তিনটি রেখার সঙ্গে পেটেও ঠিক তিনটি রেখা অর্থাৎ তিনটি বলী দেখা যায়, তার সুখের সীমা থাকে না।

শুধু নারী নয়, পুরুষের পক্ষেও এই রেখা খুব শুভ। গলা ও পেটে তিনটি রেখা থাকলে সে পুরুষ রাজপদ পায়।

পুরুষের ললাটে তিনটি রেখা থাকলে তা খুব শুভ। সে রাজ- মনুগ্রহ লাভ করে।

যস্যাস্ট্রিরেখা গ্রীবায়াং কুক্ষিরেখাস্তথৈব চ।।

সুখস্য ভাগিনী স্যাচ্চ ভূপতিস্যাল্ললাটকে।

যে নারী গৌরাঙ্গ। অর্থাৎ টকটকে ফর্সা রঙ যার বা কৃষ্ণবর্ণ বা উজ্জ্বল শ্যামবর্ণ। যার অঙ্গ, দাত বদন, স্তন ও মস্তক স্নিগ্ধ সে নারী চিরদিন সুখ ভােগ করে থাকে।

ক 

 

যার মুখ চন্ধের মত মুনােহর, শরীরকান্তি তরুণ অরুজের ফর্সা চোখ বিস্তৃত অর্থাৎ আয়ত ও লােহিত আভাযুক্ত থাকে।তরুণ অরুণের মত টকটকে লালচে তিত আভাযুক্ত থাকে, তাকে বিবাহ করলে তার স্বামীর কল্যাণ লাভ হয়ে থাকে।

গৌরাঙ্গী বা তথা কৃষ্ণা স্নিগ্ধং অঙ্গং মুখং তথা।

দস্তাঃ স্তনং শিরাে যস্যা: সা কন্যা সুখমেধতে ।।

চন্দ্রমুখী চ যা কন্যা বালসূৰ্যসমপ্রভা।

বিশালনেত্রা রক্তাক্ষী তাং কন্যাং বরয়েৎ বুধঃ ।।

যে নারীর পৃষ্ঠ ও পাশের হাড়গুলি অন্তর্নিমগ্ন ও পৃষ্ঠ মাংসল অর্থাৎ সমান্ত। হাড়গুলি মাংসে ঢাকা থাকে, সে নারী কল্যাণদায়িনী হয়ে থাকে।

যে নারীর পিঠ লােমে পরিপূর্ণ সেই ঐ পতিহীন হয়ে থাকে সন্দেহ নেই। আর যে নারীর পৃষ্ঠদেশ ভগ্ন অর্থাৎ ভাঙ্গা ভাঙ্গা, হাড়গুলি উচু উচু হয়ে ঠেলে উঠেছে ও তাতে অনেক শিরা দেখা যায়, সেই নারী দুঃখ ভােগ করে থাকে।

অন্তর্নিমগ্নরংশাস্থিঃ পৃষ্ঠ স্যাৎ মাংসল শুভা।।

পৃষ্ঠেন রােমযুক্তেন বৈধব্যং লভতে ধ্রুবম্।।

ভূগ্লেন বিনতেনাপি সশিরেণাপি দুঃখিত।

যে নারীর স্তনযুগল মূলে স্কুল ও ক্রমশ অগ্রভাগে কৃশ ও সূক্ষ্ম এবং লম্বাটে। আকারের, তারা বাল্য অবস্থায় সুখভােগ করে, কিন্তু বৃদ্ধ অবস্থায় দুঃখ ভোগ করে থাকে।

যে নারীর দক্ষিণ (ডান) স্তন উচ্চ সেই নারী পুত্রবতী ও সকলের শ্রেষ্ঠ হয়, আর যার বাম স্তন উন্নত সেই নারীর একটি কন্যা ভাগ্যশালিনী হয়।

হলে মূলে ক্ৰম কৃশাবগ্রে তীক্ষ্ণী পয়ােধরো।

সুখদৌ বাল্যকালে তু পশ্চাদত দুঃখদে।

দক্ষিণােন্নবক্ষা পত্রিী বামে তবু চা কন্যা সৌভাগবতাম ।

সুফিবাদ নিয়ে ইমাম গাজ্জালী(রহঃ) এর মন্তব্য

সুফিবাদ নিয়ে ইমাম গাজ্জালী(রহঃ) এর মন্তব্য

সুফিবাদঃ যখন সুফিসাধনায় মনোনিবেশ করলাম তখন দেখতে পেলাম যে একমাত্র সুফিগনই হক পথে প্রতিষ্ঠিত আছে ।দীর্ঘদশ বছর কৃছ্র সাধনার মাধ্যনে আমি সন্দেহাতীতভাবে এ সত্যটি উপলব্ধি করেছি যে , সুফি মন্ডলীই আল্লাহর একনিষ্ট সাধক,আল্লাহর পথের যথার্থ পথিক,তাদের তরিকাই হলো সবচেয়ে নিখুত তরিকা।তাদের নৈতিক চরিত্র মানবকুল শ্রেষ্ঠ জীবনধারা,অতি সচ্ছ এবং তারা নিখুত ও উন্নত নৈতিকতার অধিকারী ,তাদের নৈতিকতা ও চরিত্র এতই বলিষ্ঠ ও উচ্চমানের যে,সমস্ত দর্শন বিজ্ঞান ও শরীয়তবেত্তাদের যাবতীয় জ্ঞান গরিমার সমন্বয় করেও এর মোকাবেলা করা যাবে না।অনুরূপ বলিষ্ঠ চরিত্র কাঠামো রচনা করা সম্ভবপর হবে না। কারন আধ্যাত্নিক এবং জাগতিক নির্বিশেষে তাদের প্রত্যেকটি কাজ নুরে নবুয়তের দ্বারা স্নাত।এ নুরে নবুয়তকে বাদ দিলে আর কি আছে যা দ্বারা প্রকৃত সত্যের সন্ধান পাওয়া যেতে পারে।

ফানাফিল্লাহ আধ্যাত্নিক উৎকর্ষতার সর্ব্বোচ্চ স্তর এতে সন্দেহ নেই।তবে তা কৃচ্ছ্রতা সাধনার পরিনতির দিক থেকে  অন্যথায় এটাই আধ্যাত্নিকতার প্রথম সোপান,এর পুর্বে যা কিছু করা হয়,সবই এর প্রস্তুতি পর্বে গন্য। ফানাফিল্লাহ থেকে দিব্যজ্ঞান ও দিব্য দৃষ্টির উন্মেষ ঘটে।
সুফিগন এ সোপানে অনুপ্রবেশ করেই ধ্যানের(মোরাকাবা) মাধ্যমে ফেরেশতা ও নবীদের আত্নার সাথে সরাসরি সাক্ষাৎ করেন,তাদের কথা শোনেন এবং তাদের সাহায্যে প্রকৃত জ্ঞান আধ্যাত্নিকতার সন্ধান পান। শুধু তাই নয়, তাদের নৈতিক উন্নতি সাধিত হয় এবং সৃষ্টি ও বস্তুজগতের উর্ধ্বে তারা এমন একটি জগতের সন্ধান পান ,যার অবস্তা ও প্রভাব ভাষায় বর্ননা করা যায় না।তা বর্ননার চেষ্টা করলে ত্রুটি বিচ্যুতি না হয়ে উপায় নেই।তাছাড়া সান্নিধ্য ও মিলনের বর্ননা ভঙ্গি বিশেষজ্ঞগনের একান্ত নিজস্ব।
কেউ বলেন , এর অর্থ, আত্মার সাথে পরমাত্মায় মিলন। আর কারাে মতে এ হলাে, আত্মার পরমাত্মায় উপনীত হওয়া। প্রকৃতপক্ষে এ মতবাদগুলাে গবেষণা করেছি। এ ব্যাপারে চূড়ান্ত কথা এই যে, যারা এসব গূঢ় রহস্যের সাথে পরিচিত হয়েছেন, তাদের এই অধিক কিছুই বলা উচিত নয় যে, যা হওয়ার তা-ই হয়েছে, বর্ণনা করার নয়। এতটুকুই জেনে রাখা ভাল যে, ভালই হয়েছে, এর বেশি অনুসন্ধান করে কোন উপকার হবে না।

মোটকথা, যে ব্যক্তি তাসাউফের (সুফিবাদের)আলো পায়নি, সে নবুয়তের তাৎপর্য উপলব্ধি করতে সম্পুর্ন অক্ষম।মুর্খরাই সুফিবাদের বিবৃত তত্ত্ব ও তথ্যকে অস্বীকার করে এবং তা নিয়ে বিদ্রুপের হাসি হাসে।

কল্প তরুর গল্প-বাংলা ছোট গল্প

কল্প তরুর গল্প-বাংলা ছোট গল্প

জগতটা হলো কল্পতরুর গল্পের মত। একটা লোক হাটতে হাটতে ক্লান্ত ক্ষুদার্ত হয়ে একটি গাছতলায় গিয়ে বসলো। কিন্তু সে জানতনা সেই গাছটি ছিলো কল্প তরুর গাছ। সেখানে কিছুক্ষন বিশ্রাম নেয়ার পরে সে ভাবলো এখন যদি ভালো মন্দ খাবার পাওয়া যেত তবে খুব ভালো হতো। সঙ্গে সঙ্গেই তার সামনে কিছু খাবার এসে হাজির হলো। লোকাটা ক্ষুদার তারনায় অতসত বিছার না খাবারগুলো খেয়ে নিলো। খাওয়া দাওয়ার পরে তার একটু ঘুম ঘুম পাচ্ছিল। সে আবার মনে মনে ভাবলো এ যদি এখানে একটি বিছানা পাওয়া যেত তাহলে খুব ভালো হত। সঙ্গে সঙ্গেই বিছানা এসে হাজির হলো। লোকটি অতসত বিছার না করে বিছানায় শুয়ে পরলো। বিছানায় শুয়ে লোকটি মনে মনে ভাবলো এখন যদি কেউ আমার পা দুটি টিপে দিতো তাহলে খুব ভালো হত। সঙ্গে সঙ্গেই কেউ এসে তার পাদুটি টিপে দিতে লাগলো। তখন লোকটা চমকে উঠে ভাবলো এটা কি ঘটতে চলেছে কোন ভুত নাত? আবার ভুত এসে গলা টিপে মেরে ফেলবে নাতো? সঙ্গে সঙ্গেই একটা ভুত এসে হাজির হয়ে লোকটাকে গলা ঠিপে মেরে ফেললো।

গল্পটা থেকে আমাদের শিক্ষা হলো- আমারা যেরকম ভাবছি সেরকম লাভ করছি। জগতটাকে যে রকর ভাবছি সেরকমই জগতটা আমাদের কাছে ধরা দিচ্ছে। আমরা যদি সৎ চিন্তা করি পরকালে সৎ চিন্তাগুলিই আমাদের সামনে আসবে। আর যদি অসৎ চিন্তা করি অসৎ চিন্তাই আমাদের সামনে আসবে। এ প্রসঙ্গে ইমাম গাজ্জালী (রহঃ) বলেছেন, কেবলমাত্র দুটি জিনিসই আমাদের সঙ্গে যা্বে। একটি হলো সৎ ভাবনা আর অন্যটি হলো অসৎ ভাবনা।