Select Page

ঘুম আসার সহজ উপায়: ঘুম প্রকৃতির এক অনন্য দান এবং অমূল্য সম্পদ। যার সঠিকভাবে ঘুম হয়না সেই এই অমূল্য সম্পদের মূল্য বুঝতে পারে । ঘুম ছাড়া না হলে মানুষ পাগল প্রায় হয়ে পড়ে। বৈবৈজ্ঞানিক গবেষণা দ্বারা পরিষ্কার ভাবে বুঝা যায় যে ঘুম সব বয়সেই জরুরী । ঘুম মনকে সতেজ করে তোলে, দেহের কার্যত প্রতিটি সিস্টেমকে শক্তিশালী করে, দেহকে পুনর্গঠন করে। কিন্তু উপরুক্ত সুবিধাগুলি পেতে কতটুকু ঘুম আমাদের দরকার?

Home Remedies For Deep Sleep at Night

ন্যাশনাল স্লিপ ফাউন্ডেশন নির্দেশিকাঃ

স্লিপ ফাউন্ডেশন এক পরামর্শ বার্তায় বলে যে প্রাপ্তবয়স্ক স্বাস্থ্যবানদের প্রতি রাতে 7 থেকে 9 ঘন্টা ঘুমের প্রয়োজন রয়েছে। বাচ্চা, ছোট বাচ্চাদের এবং কিশোরদের আরও বেশি ঘুম দরকার তাদের বৃদ্ধি এবং বিকাশ সক্ষম করতে করার জন্য। ৭ থেকে ৮ ঘন্টা সময় 65 বছরের বেশি বয়সীদেরও প্রতি রাতে ঘুম দরকার।

ঘুম প্রকৃতির সৃষ্টি। ঘুম না হলে পৃথিবীর যে কেউ তার স্বাভাবিক জীবন চালিয়ে যেতে পারে না। ঘুম বাঁচার অংশ আপনি যদি প্রতি রাতে প্রায় না ঘুমিয়ে থাকেন তবে সকালে চোখ খোলার পরে আপনি ক্লান্ত বোধ করবেন। সারা দিন শরীর ঝিমঝিম করবে। এবং দ্রুত ওজন বৃদ্ধির এটি একটি বড় কারণ। অনেকে একে অনিদ্রা বলে থাকেন। আসলে আমরা যদি ঠিক মতো না ঘুমাই তবে আমরা একে অনিদ্রা বলি। লাতিন শব্দ ‘সোনিয়া’ এর অর্থ ‘ঘুম’। এবং ‘ইন’ এর অর্থ ‘না’। ‘অনিদ্রা’ শব্দটি এই দুটি থেকেই এসেছে।

নীচে আমরা ঘুম আসার সহজ উপায় সম্পর্কে আলোচনা করব:

১. ঘুমের রুটিন অনুসরণ করুন:

ঘুম

আপনার প্রয়োজন ঘুমের রুটিন। এটি গভীর ঘুমের বিকাশ করে। আজ থেকে প্রতিদিন ঘুমের জন্য সঠিক সময় নির্ধারণ করুন। প্রতি রাতে একই সময় ঘুমালে গভীর ঘুম বিকাশে সহায়তা করে।

২. ধূমপান করবেন না:

সকলেই জানেন ধূমপান স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকারক। গভীর ঘুমের ক্ষেত্রেও এটি একটি বাধা। তাই ধূমপান এড়িয়ে চলুন।

৩. ডায়েট পরিবর্তন করুন:

কফি, চা, কোমল পানীয় এবং চকোলেট আপনার গভীর নিদ্রা কমিয়ে দেয়। সুতরাং, এগুলি এড়িয়ে যান। মশলাদার বা ভারী খাবার এড়িয়ে চলুন। রাতের হালকা খাবার গ্রহন করুন। এবং আপনার শোবার কয়েক ঘন্টা আগে আপনার ডিনার শেষ করা উচিত।

৪. ডিভাইসগুলি এড়িয়ে চলুন:

এটি একটি খারাপ ধারণা। কম্পিউটার, টেলিভিশন, ভিডিও গেম বা সেল ফোনের মতো কিছু ধরণের ইলেকট্রনিক্স আমরা বিছানায় যাওয়ার আগে সর্বদা শেষ ঘন্টাটির মধ্যে ব্যবহার করি। এই ডিভাইসগুলির আলো মস্তিষ্ককে উদ্দীপিত করে, এটিকে বায়ু করা শক্ত করে তোলে, তাই গভীর ঘুমের জন্য এই ধরণের ডিভাইসটি এড়িয়ে চলার চেষ্টা করুন।

৫. খুব বেশি চিন্তাভাবনা:

আমরা ঘুমাতে যাওয়ার আগে আমাদের মস্তিষ্ককে প্রতিদিন হাজারো সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে দিই না। এমনকি বিছানায় শুয়ে থাকার পরেও মস্তিষ্ক বিভিন্ন জটিলতা নিয়ে কাজ করতে থাকে। যা ভাল ঘুমের সম্ভাবনা নষ্ট করে।

ঘুমোতে যাওয়ার আগে এই প্রতিদিনের চিন্তাভাবনা থেকে নিজেকে সরিয়ে দিন। আপনার সম্পূর্ণ মনোযোগ গ্রহণ করে এমন অন্য কিছু করুন। উদাহরণস্বরূপ, একই নামের সাথে শুরু হওয়া দেশের নামটি মনে রাখুন বা আপনার মনে নিদ্রাকে বহুগুণ করুন।

৬. আলোর উৎস:

যে কোনও হালকা আলোর উৎস যা খুব ছোট, তা আপনার পছন্দসই ঘুমকে নষ্ট করার পক্ষে যথেষ্ট। হতে পারে এটি কোনও সুইচবোর্ড বা বৈদ্যুতিক ডিভাইস থেকে আলো। ঘুমানোর সময় সমস্ত হালকা আলোর উৎস বন্ধ করুন বা ঘুমানোর মুখোশ পরে ঘুমান।

৭. গোলমাল:

৭. ওয়ার্কআউট সেশন:

আপনার শয়নকাল আগে ওয়ার্কআউট সেশন গুটিয়ে নিন।

যৌন মিলন ঋতুর কোন তারিখের করলে কি রকম সন্তান হয়।